‘অদৃশ্য যুদ্ধ বিমান’ নিয়ে প্রলাপ বকছেন ট্রাম্প!

আন্তর্জাতিক প্রধান খবর

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তার সরকার প্রতিরক্ষা ও সামরিক খাতে ব্যয় করার জন্য বিপুল পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ করতে যাচ্ছে। থ্যাঙ্কস গিভিং ডে উপলক্ষে দেশটির কোস্ট গার্ড সদস্যদের একটি অনুষ্ঠানে কথা বলার সময় তিনি সামরিক খাতে ব্যয় বাড়ানোর বিষয়টি জানান।

এ সময় আমেরিকার এয়ার ফোর্সের নতুন বিমানের প্রশংসা করতে গিয়ে অদ্ভুত কিছু মন্তব্য করেন তিনি। ট্রাম্প দাবি করেন- নতুন এফ-৩৫ বিমানগুলো ‘সিনেমার বিমানের মতো’ ভেল্কি দেখাতে পারবে। বিভিন্ন দেশের পত্রিকা তার থ্যাঙ্কস গিভিং ডে-এর বক্তৃতা নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

ট্রাম্প বলেন, “আমরা অকল্পনীয় পরিমাণ যন্ত্রপাতির অর্ডার দিচ্ছি। এখন মিলিটারির জন্য ৭০০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করার কথা ভাবা হচ্ছে। নেভির জন্য জাহাজ আনা হবে। এয়ার ফোর্সের জন্য অনেকগুলো প্লেনের অর্ডার দেয়া হয়েছে। বিশেষ করে এফ-৩৫ বিমান আনা হচ্ছে। এটি প্রায় অদৃশ্য একটি যুদ্ধ বিমান।”

ট্রাম্প বলেন, তিনি ‘এয়ার ফোর্সের লোকদেরকে’ নতুন যুদ্ধ বিমান সম্পর্কে জিজ্ঞেস করেছিলেন।

“ওরা আমাকে বলেছে এটি দেখতে পাওয়া যাবে না। যুদ্ধের সময় কী রকম কাজ করবে জানতে চাইলে ওরা বলে, যত যুদ্ধে পাঠানো হবে তার প্রতিটিতে এই বিমান জিতে আসবে। কারণ, শত্রুরা এটি দেখতে পাবে না। এমনকি তাদের ঠিক পাশে থাকলেও তারা এটিকে দেখতে পাবে না,” বলেন ট্রাম্প।

নতুন যুদ্ধ বিমানের গুণাগুণ শুনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট আশ্বস্ত হয়েছেন বলেও জানান।

ট্রাম্প বলেন, “আমাদের যে যন্ত্রগুলো আছে সেগুলো আর কারও কাছে নেই। এটা দুঃখজনক যে আমরা অন্য দেশের কাছে অস্ত্র বিক্রি করছি, কিন্তু নিজেরা অস্ত্র কিনছি না। কিন্তু এখন সব বদলে গেছে।”

আগের বিভিন্ন সরকারের সময়ে সামরিক খাতে ব্যয় কমানো হয়েছিল বলে মন্তব্য করেন ট্রাম্প। তার সরকার আবার প্রতিরক্ষা ও সামরিক খাতে ব্যয় বহুগুণ বাড়িয়েছে বলেও তিনি জানান।

উল্লেখ্য, নতুন এফ-৩৫ বিমানগুলো রাডার ফাঁকি দিয়ে হামলা চালাতে সক্ষম হলেও ট্রাম্পের অতিশয়োক্তি সঠিক নয়। ‘ঠিক পাশে থাকলেও দেখতে পাওয়া যাবে না’ এমন মন্তব্য হাস্যকর। রাডারের চোখ ফাঁকি দিলেও একেবারে অদৃশ্য হয়ে যাওয়া বিমানটির পক্ষে সম্ভব নয়।