অনিশ্চিত মাশরাফি,বাদ পড়লেন রুবেল

ডি বি এন২৪ নিউজ ডেস্কঃ জিম্বাবুয়ে সিরিজকে সামনে রেখে পাঁচ দিন আগে থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্যাম্প। জ্বরের কারণে শুরু থেকে ক্যাম্পে থাকতে পারেননি পেসার রুবেল হোসেন ও স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ। জ্বর কাটিয়ে মিরাজ ফিরলেও রুবেলের এখনো ফেরা হয়নি। অবস্থার বিশেষ উন্নতি না হওয়ায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছেন ডানহাতি এই পেসার। দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে না পারায় আগামীকাল রুবেলকে ছাড়াই মাঠে নামতে হতে পারে বাংলাদেশ দলকে।

এদিকে শরীরের বর্তমান অবস্থা জানিয়ে রুবেল বলেন, ‘এই মুহূর্তে আগের চেয়ে অনেকটাই ভালো আছি। তবে শরীর বেশ দুর্বল।’তিনি আরো বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব সুস্থ হয়ে ম্যাচ খেলতে চাই। তবে নিশ্চিত খেলতে পারব কি না সেটি বলতে পারছি না। কাল (শনিবার) অনুশীলনে যোগ দেয়ার পর বোঝা যাবে।’

রুবেল প্রথম ওয়ানডে খেলার ব্যাপারে আশাবাদী হলেও জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলছেন অন্য কথা। তার কথায়, ‘এই মুহূর্তে রুবেল অনেকটাই সুস্থ। তারপরও খেলতে না পারলে সমস্যা নেই। আমাদের হাতে যথেষ্ট অপশন রয়েছে। প্রথম ওয়ানডে সে খেলতে পারবে কি না সেটা নিশ্চিত নয়। চট্টগ্রামে দ্বিতীয় ওয়ানডে থেকে সে খেলবে।’

শেষ পর্যন্ত রুবেলকে ছাড়াই মাঠে নামতে হলে বাংলাদেশের জন্য হিসাবটা কঠিনই হয়ে যাবে। তার অনুপস্থিতিতে পেস আক্রমণ কিছুটা ধারহীন হয়ে পড়বে, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। কারণ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাও পুরোপুরি ফিট নন। ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙুল ও ঊরুর ইনজুরিতে ভুগছেন তিনি।

সাকিব আল হাসান-তামিম ইকবাল ইনজুরির কারণে দলে নেই। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে বাংলাদেশ দলের একাদশে দেখা যেতে পারে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন।এশিয়া কাপের স্কোয়ডে থাকা বেশ কয়েকজন ক্রিকেটারের জায়গা হয়নি জিম্বাবুয়ে সিরিজের জন্য ঘোষিত স্কোয়াডে। অনেকে জায়গা হারালেও স্কোয়াডে প্রথম বারের মতো জায়গা পেয়েছেন ফজলে রাব্বির মতো ক্রিকেটার।

তাই সব মিলিয়ে একাদশে যে পরিবর্তন আসছে সেটা অনেকখানিই নিশ্চিত। এশিয়া কাপের ফাইনালে মেহেদি হাসান মিরাজ এবং লিটন দাস ওপেন করলেও প্রথম ওয়ানডেতে পরিবর্তন আসতে পারে এই পজিশনে।

লিটন দাসের সঙ্গে ওপেন করতে দেখা যেতে পারে এশিয়া কাপে লোয়ার মিডেল অর্ডারে ব্যাট করা ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসকে। আর ইমরুলকে যদি আগের পজিশনেই রেখে দেয় টিম ম্যানেজম্যান্ট তাহলে একাদশে ফিরতে পারেন নাজমুল হোসেন শান্ত।

তিন নম্বরে যেহেতু সাকিব আল হাসান নেই, সেক্ষেত্রে মোহাম্মাদ মিথুনের উপরেই আস্থা রাখবে টিম ম্যানেজম্যান্ট। নিজের প্রিয় পজিশন চার নম্বরেই থাকবেন মুশফিকুর রহিম।অভিষেকের অপেক্ষায় থাকা ফজলে রাব্বি হতে পারেন টিম ম্যানেজম্যান্টের পাঁচ নম্বর পজিশনের জন্য পছন্দ। ছয়ে থাকবেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাতে একজন লোয়ার মিডেল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে কাওকে একাদশে রাখলে জায়গা হতে পারে সাইফউদ্দিনের।

সাইফউদ্দিন খেললে মেহেদি হাসান মিরাজ খেলবেন আট নম্বরে। আর সাইফউদ্দিনকে না খেলালে মিরাজ থাকবেন সাথে আর বাড়তি স্পিনার হিসেবে জায়গা পেতে পারেন নাজমুল ইসলাম অপু।

নয় নম্বরে থাকবেন অধিনায়ক মাশরাফি আর বোলিংয়ে সঙ্গী হিসেবে পাবেন মুস্তাফিজুর রহমান এবং রুবেল হোসেনকে। সব মিলিয়ে একাদশে একের অধিক পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা রয়েছে।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশঃ লিটন দাস, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মাদ মিথুন, মুশফিকুর রহিম, ফজলে রাব্বি, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সাইফউদ্দিন,নাজমুল ইসলাম অপু, মাশরাফি বিন মর্তুজা, মেহেদি হাসান মিরাজ, মুস্তাফিজুর রহমান।

Comments

comments

Leave A Reply

Your email address will not be published.