আইপিএলে চারটি ভুল সিদ্ধান্ত ; যার জন্য কড়া মাশুল দিতে হয়েছে প্রতিপক্ষকে…

ক্রিকেট খেলাধুলা

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) একাদশ আসর জমজমাটভাবেই চলছে। ইতোমধ্যে প্রথম সপ্তাহ ফেরিয়ে দ্বিতীয় সপ্তাহে পা দিল ইন্ডিয়ার হাইভোল্টেজ আসরটি। যাতে মোটে ১৮টি ম্যাচ শেষ হয়েছে। বলা বাহুল্য, পূর্বের ন্যায় এবারের আইপিএলও উত্তাপ ছড়াচ্ছে বহুগুণ। গেইল-ওয়াটসন কিংবা রোহিত-ব্রাভোদের উপস্থিতিতে উত্তাপ ছড়ানোটাই স্বাভাবিক।

এককথায় ভালো-খারাপ সব মিলিয়ে তর তর করে এগিয়ে যাচ্ছে ইন্ডিয়ার জনপ্রিয় লিগটি। চলতি আসরে এখন পর্যন্ত পাঁচটি মেজর ভুল লক্ষ্য করা গেছে। যা স্পোর্টসজোন ২৪ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো :-

রোহিত শর্মার বিরুদ্ধে লেগ স্পিনার না খেলানো

লেগিদের বিরুদ্ধে অসহায় রোহিত শর্মা। এটি বেশ পুরোনো খবর। এটা জানা আছে বিশ্বের সবারই। কিন্তু তার পরও ১৭ এপ্রিলের ম্যাচটিতে রোহিতের বিপরীতে লেগি বোলারদের ব্যবহার করেনি ক্যাপ্টেন কোহরি। যার ফল হাতে নাতে দেখেছে ক্রিকেটবিশ্ব। রীতিমত তাণ্ডব চালিয়ে আসরে নিজেদের প্রথম জয় এনে দেন রোহিত।

ম্যাচটিতে রোহিত শর্মার ৫২ বলে ৯৪ রানের ওপর ভর করে ২১৩ রান সংগ্রহ করে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। যা টপকাতে গিয়ে বড় ব্যবধানে হেরে বসে বেঙ্গালুরু।

রাজস্থানের ক্যাচ মিসের খেসারত

ক্রিকেটে একটি প্রবাদ আছে, ক্যাচ মিস মানেই ম্যাচ মিস। তবে সেটি আরেকবার প্রমাণ হলো চেন্নাই-রাজস্থান ম্যাচে। ম্যাচটিতে বুড়ো ওয়াটসন ঝোড়ো সেঞ্চুরির দিনে মোটে দুইটি উইকেট লাভ করেন। ৫৭ ডেলিভারিতে ১০৬ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। আর এটি আইপিএলে তার তৃতীয় সেঞ্চুরি। ওয়াটসনের ঝোড়ো সেঞ্চুরির ওপর ভর করে শেষ অবধি রাজস্থানকে ২০৫ রানের টার্গেট ছুড়ে দেয় চেন্নাই।

শ্রেয়াস আয়ারের বিপরীতে মানজোট কালরাকে না খেলানো

চলতি আইপিএলে মোটেও স্বস্তি নেই শ্রেয়াস আয়ার। তিন ইনিংসে মোটে ৩৮ রান তুলেছেন তিনি। অথচ বার বার তার বিপরীতে মানজোটকে খেলানোর কথা থাকলেও তা করেনি দিল্লি।

কিংস ইলেভেন পাঞ্চাবের বিপক্ষে সাকিবকে দেরিতে ব্যাটিংয়ে নামানো

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ আইপিএলে হায়দরাবাদ ও পাঞ্চাবের সর্বশেষ মুখোমুখিতে ক্যারিবীয়ান দানব ক্রিস গেইলের ১০৪ রানের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ১৯৩ রান সংগ্রহ করে পাঞ্চাব। জবাবে খেলতে নেমে পুরোপুরি ব্যর্থতার পরিচয় দেন হায়দরাবাদের ওপেনার শিখর ধাওয়ান। এদিন ইউসুফ পাঠানকে আগে নামানো হলেও তিনি ব্যর্থতার পরিচয় দেন। যাই হোক হাল ধরার চেষ্টা চালান অধিনায়ক উইলিয়ামসন ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান মনীষ পাণ্ডে।

তবে ম্যাচটিতে শেষ পর্যন্ত ঝিলিক দেখান টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তিনি ১২ বলে ২৪ রানের ইনিংস খেলেন। ফলে ম্যাচ শেষে সেরা স্ট্রাইক রেটের জন্য পুরস্কারও পান। আর ওই ম্যাচটিতে সাকিবকে দেরিতে নামানোটা অনেকের চোখে বড় ধরণের বোকামি।