আবারও টেস্টে অধিনায়ক হিসেবেই দেখা যেতে পারে মাশরাফিকে

ক্রিকেট খেলাধুলা

আবার টেস্ট ক্রিকেট খেলতে পারবেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। শুধু ক্রিকেটার হিসেবেই নন টেস্টেও অধিনায়ক হিসেবেই ফিরতে পারেন বলে ওয়ানডে অধিনায়কের সুরেই তাল মেলালেন অস্ট্রেলিয়ার বিখ্যাত শল্যবিদ ডেভিড ইয়াং। সম্প্রতি নিজের মুখেই সাদা জার্সি গায়ে ফেরার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। কিন্তু পরক্ষণেই আবার বিসিবি সভাপতি তা নাকোচ করে দিয়ে বলেন সে চাইলে এখনি টি-টোয়েন্টি দলে নেয়া হবে। টেস্টে ফেরা না ফেরা নিয়ে যখন এতো কথা এ পর্যায়ে এসে শল্যবিদ ডেভিড

ইয়াং বললেন, টেস্ট ক্রিকেটেও নেতা হিসেবেই ফিরতে পারেন মাশরাফি। এখন দেখার বিষয় বিসিবি কি উত্তর দেয়।

ইনজুরি আক্রান্ত হাঁটুতে সাতবার অস্ত্রোপচারের পর মাশরাফি সবশেষ টেস্ট খেলেছেন সেই ২০০৯ সালে। প্রবল ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও প্রিয় ফরমেটে এরপর আর খেলা হয়নি তার। মঙ্গলবার ৬ ফেব্রুয়ারি ৩৪ বছর বয়সী মাশরাফি সম্পর্কে রোমাঞ্চকর এক তথ্য দিলেন তার চিকিৎসক ডেভিড ইয়াং। বললেন আবার টেস্ট ক্রিকেট খেলতে পারবেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’।

তিনি বলেন, ‘প্রতিটি দলেরই একজন নেতা প্রয়োজন। যিনি শুধু ক্রিকেটার হিসেবেই নন, সবসময়ই একজন নেতার ভূমিকা পালন করবেন। সে তার দলের প্রয়োজনে অবশ্যই টেস্ট খেলবে। বিষয়টি এমন না যে তাকে সেরা খেলোয়াড় হতে হবে কিংবা সুপারস্টার হতে হবে। আমার মনে হয় মাশরাফি তেমনই এক নেতা। সে টেস্ট খেলার মতো অবস্থায় আছে। ’

একের পর এক মাশরাফির উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে গেলেন ডেভিড। ‘মাশরাফি একজন পেশাদার প্লেয়ার যে কিনা তার দেশের প্রয়োজনে নিবেদিত প্রাণ। এটা আমার জন্য আনন্দের যে ওর ক্যারিয়ারে অল্প সময়ের জন্য হলেও আমি ছিলাম। ওর যে বিষয়টা আমার ভালো লাগে সেটা হলো মানুষ হিসেবে সে অসাধারণ এবং তার হৃদয়টা অনেক বড়। সে একজন দাতাও যে তার আশপাশের মানুষ, দল এমনকি দেশ নিয়েও ভাবে। ওকে নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের গর্ব করা উচিত। সে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অনেক বড় এক দূত। ’

যদি বলা হয় ক্রিকেট খেলতে গিয়ে টাইগারদের ওয়ানডে দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা যতবারই হাঁটুর বড় ধরণের ইনজুরিতে পড়েছেন, ততবারই ছুটে গেছেন ডেভিডের কাছে, তাহলে কথাটা ভুল হবে না। শুধু অস্ত্রোপচার করেই ক্ষান্ত থাকেননি এই শল্যবিদ। অস্ত্রোপচার পরবর্তী পুনর্বাসন কী হবে তাও মাশরাফিকে বাতলে দিয়েছেন। হাঁটুতে মাশরাফির সবশেষ অস্ত্রপচারটি তিনি করেছেন ২০১১ সালে। এরপর অবশ্য মাশরাফিকে আর তার শরণাপন্ন হতে হয়নি। কেননা ইয়াংয়ের ছোঁয়ায় দিব্যি সুস্থ আছেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রাণভোমরা। ডেভিড ইয়াংয়ের হাতে মেলবোর্নে মাশরাফির হাঁটুতে অস্ত্রপচার হয়েছে ৬ বার।