ইংল্যান্ডে কোহলি নামের পাশের ১৩.৪০ গড় দেখতে চান না

ক্রিকেট খেলাধুলা
২০১৪ সালে পুরো ইংল্যান্ড সফরে ৫ টেস্টে কোহলি ব্যর্থ হয়েছিলেন। ১০ ইনিংসে ১৩৪ রান। ব্যাটিং গড় ১৩.৪০। বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ড ছাড়া আর কোনো দেশে তাঁর ব্যাটিং গড় ৩৫-এর নিচে নয়

বাংলাদেশের মাটিতে টেস্টে বিরাট কোহলির ব্যাটিং গড় কত জানেন? ১৪! কোনো দেশে তাঁর এর চেয়ে বাজে ব্যাটিং গড় আছে কেবল ইংল্যান্ডে। সেখানে ব্যাটিং গড় ১৩.৪০! বাংলাদেশে কোহলির ব্যাটিং গড়টি পরিসংখ্যানের ফাঁকি। কোহলি বাংলাদেশে টেস্ট খেলেছেনই একটি, সেটিও এক ইনিংসে। কিন্তু ইংল্যান্ডের ক্ষেত্রে সেটি বলা যাচ্ছে না।

২০১৪ সালে পুরো ইংল্যান্ড সফরে ৫ টেস্টে কোহলি ব্যর্থ হয়েছিলেন। ১০ ইনিংসে ১৩৪ রান। গড় বের করাটাই কেবল সহজ করে দিয়েছেন কোহলি। কিন্তু নিজে জানেন, নামের পাশে এই গড় কত বেমানান। কোহলি তাই এবার কোমর বেঁধে নামছেন। ইংল্যান্ড সফরের আগে কাউন্টিতে খেলবেন। নিজেই ব্যাখ্যা করলেন, কাউন্টিতে খেলার পরিকল্পনার কথা।
জুলাইয়ে ইংল্যান্ড সফরে যাবে ভারত। ৪ বছর আগে এমনই জুলাইয়ে সেখানে গিয়ে কোহলি প্রতিকূল কন্ডিশনে নিজের ব্যাটিং সামর্থ্যকে তুলে দিয়েছিলেন প্রশ্নের মুখে। ১০ ইনিংসে সাতবার এমনভাবে ক্যাচ তুলেছেন, বোঝাই যাচ্ছিল, ইংলিশ গ্রীষ্মের সেই সুইং সামলাতে পারছেন না। তখন শুধু ইংল্যান্ড নয়, দেশের বাইরে কোহলির রেকর্ড; ওয়ানডে আর টেস্টের রেকর্ডের পার্থক্য কত গবেষণা হলো!
কোহলি পরে টেস্টেও দুর্দান্ত ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করেছেন। বিদেশের মাটিতেও। নিজের দাপট দেখিয়েছেন। টেস্টে অস্ট্রেলিয়ায় তাঁর ব্যাটিং গড় ৬২। নিউজিল্যান্ড সেটি ৭১.৩৩। দক্ষিণ আফ্রিকায় ৫৫.৮০। শ্রীলঙ্কাতেও মন্দ নয়, ৪৩.৭৭। ওয়েস্ট ইন্ডিজে গত সফরে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে সেটিও ভদ্রস্থ চেহারা দিয়েছেন (৩৬.৩৩)। এবার ইংল্যান্ডের ‘নাটবল্টু’ ঠিকঠাক করার পালা।
জুলাইয়ে ইংল্যান্ডে যাওয়ার আগে কোহলি তাই কাউন্টি খেলতে চান। সারের হয়ে খেলতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। এখনো তা অবশ্য চূড়ান্ত হয়নি। আইপিএল শেষে এক মাসের মতো ফাঁকা সময় থাকবে কোহলির। এরপর জুনের মাঝামাঝি আফগানিস্তানের অভিষেক টেস্টে খেলবে ভারত। ইংল্যান্ডে আসার আগে আয়ারল্যান্ড ঘুরে আসবে ভারত। কোহলি এই সময়টাই কাজে লাগাতে চাইছেন।
এনডিটিভিকে কোহলি বলেছেন, ‘কাউন্টি খেললে সেটি আমার ক্রিকেটকে আরও শানিয়ে নিতে সাহায্য করবে। এটা আরও বেশি চ্যালেঞ্জিং, আরও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ করবে। তবে সফরের আগে গিয়ে খেলা মানে আপনি ভালো করবেনই তার নিশ্চয়তা নয়। এটা বরং অচেনা কন্ডিশনে নিজেকে আরও একটু বেশি মানিয়ে নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া।
ভারত মজে আছে এখন আইপিএলে। যদিও ভারতেরই দুই ক্রিকেটার এখন কাউন্টিতে ব্যস্ত। চেতেশ্বর পূজারা খেলছেন ইয়র্কশায়ারে। ইশান্ত শর্মা সাসেক্সের হয়ে। বিসিসিআইও এবার দলকে অনেক বেশি সময় দিতে চায়। গত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের আগে দল যথেষ্ট প্রস্তুতির সময় পায়নি বলে অনেক সমালোচনা হয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত সূচিতে একটিই চার দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। ভারত অবশ্য সফর শুরু করবে টি-টোয়েন্টি ও ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে।
১ আগস্ট এজবাস্টনে প্রথম টেস্ট শুরুর আগে আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডে ছোট সংস্করণের সূচি মিলিয়ে ১ মাসের মতো সময় ইংলিশ কন্ডিশনে কাটানো হয়ে যাবে। ২০১৪ সালে সফরে ২ ম্যাচে শেষে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে থেকেও ৩-১-এ সিরিজ হেরেছিল ভারত।

বিদেশে টেস্টে কোহলি

স্বাগতিক ইনিংস রান সর্বোচ্চ গড় ১০০ ৫০
অস্ট্রেলিয়া ১৬ ৯৯২ ১৬৯ ৬২.০০
বাংলাদেশ ১৪ ১৪ ১৪.০০
ইংল্যান্ড ১০ ১৩৪ ৩৯ ১৩.৪০
নিউজিল্যান্ড ২১৪ ১০৫* ৭১.৩৩
দক্ষিণ আফ্রিকা ১০ ৫৫৮ ১৫৩ ৫৫.৮০
শ্রীলঙ্কা ১০ ৩৯৪ ১০৩* ৪৩.৭৭
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ৩২৭ ২০০ ৩৬.৩৩