এক ম্যাচেই এত রেকর্ড!

ক্রিকেট খেলাধুলা

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাট টুয়েন্টি টুয়েন্টিতে দ্রুত সেঞ্চুরির বিশ্বরেকর্ড গড়লেন দক্ষিণ আফ্রিকার ডেভিড মিলার। বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মাত্র ৩৫ বলে সেঞ্চুরি করেন দ্য কিলার খ্যাত মিলার।

ফলে ২০১২ সালে দক্ষিণ আফ্রিকারই রিচার্ড লেভির গড়া দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড ভেঙে ফেলেন তিনি। রোববার পচেফস্টুমে দ্রুত সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়ে নয়টি ছক্কা ও সাতটি চারে ৩৬ বলে অপরাজিত থেকে ১০১ রান করেন মিলার। ফলে ৮৩ রানে জয় পায় প্রোটিয়ারা।

এর আগে ২০১২ সালে হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৪৫ বলে সেঞ্চুরি করেছিলেন লেভি। ওপেনার হিসেবে খেলতে নেমে শেষ পর্যন্ত পাঁচটি চার ও ১৩টি ছক্কায় ৫১ বলে ১১৭ রান করে অপরাজিত থাকেন লেভি। ওই ম্যাচ ৮ উইকেটে জিতেছিলো প্রোটিয়ারা।

শুধু লেভি বা মিলার নয়, টি-টোয়েন্টিতে দ্রুততম সেঞ্চুরির তালিকায় তৃতীয় ব্যাটসম্যানটিও দক্ষিণ আফ্রিকার। তিনি হলেন অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। ২০১৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৪৬ বলে সেঞ্চুরি হাঁকান তিনি।

এই তালিকা শীর্ষে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল ও অস্ট্রেলিয়ার অ্যান্ড্রু সাইমন্ড। ৩০ বলে সেঞ্চুরি করেছেন গেইল এবং ৩৪ বলে সাইমন্ড।

মিলারের আরো রেকর্ড :
১) টি-টোয়েন্টিতে মিডলঅর্ডারে ৪ নম্বরে সেঞ্চুরি করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে মিলার শীর্ষে। এর আগে সর্বোচ্চ রানের মালিক ছিলেন লোয়ার মিডলঅর্ডারে ৫ নম্বরে থাকা কোরি অ্যান্ডারসন। তার সংগ্রহ ছিল ৯৪, সেটিও ছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে চলতি বছরে।

২) ম্যাচের ১৯তম ওভারে ৩১ রান নেন মিলার। সেই সময় বল হাতে ছিলেন সাইফুদ্দিন। তার ওভারে প্রথম পাঁচটি বলে পাঁচটি ছক্কা হাঁকান মিলার। এর সুবাদে ইভিন লিউইস ও যুবরাজ সিংয়ের রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলেছেন তিনি। টি-টোয়েন্টিতে এক ওভারে করা সর্বোচ্চ ছক্কার মালিক এখন থেকে তিনি।

৩) শেষ চার ওভারে ৫৯ রান সংগ্রহ করেছেন মিলার। ফলে আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবীর রেকর্ড ভেঙে ফেলেছেন তিনি। মিলার ছয় ছক্কা ও চার বাউন্ডারিতে ১৬ বলে করেছেন ৫৯ রান। আর মোহাম্মদ নবি চলতি বছরে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ৮৯ রানের ইনিংসে ৫৯ রান করেছিলেন ৩০ বলে।

৪) মাত্র ১২ বলে শেষ ৪৯ রান করেছেন মিলার। প্রথম অর্ধশতকটি তিনি করেছেন মাত্র ২৩ বলে। এটি মিলারের টি-টোয়েন্ট ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরি।