ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি প্রতিযোগিতা প্রস্তুত সেরা ১০ সুন্দরী

বিনোদন

কম্বোডিয়াতে অনুষ্ঠিত হবে ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি ২০১৭-এর গ্র্যান্ড ফিনালে আগামী ১৯ ডিসেম্বর। বিভিন্ন দেশ থেকে নির্বাচিত একশো মিস ইউনিভার্সিটি চূড়ান্ত লড়াইয়ের জন্য অংশ নেবেন।

২৩ নভেম্বর ১০০ সুন্দরী নিয়েইন্টারন্যাশনাল গ্রুমিং শুরু হবে কোরিয়াতে। বাংলাদেশ থেকেও একজন এবার এই প্রতিযোগিতায় প্রতিনিধিত্ব করবেন। এরইমধ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অংশ নেওয়া প্রতিযোগীদের মধ্য থেকে সেরা ১০ জনকে নির্বাচিত করা হয়েছে।

আসছে শুক্রবার  সন্ধ্যা ৬টায় চ্যানেল আই ভবনে জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নির্বাচিত  করা হবে ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশকে। ১০ জন নির্বাচিত হলেও, গ্র্যান্ড ফিনালে অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন সেরা ১৫ সুন্দরী।  করছেন নাচের মহড়াও। তাঁদের নাচের কোরিওগ্রাফি করছেন আয়ান।

এনটিভি অনলাইনকে  কোরিওগ্রাফার আয়ান বলেন, ‘সেরা ১৫ জন সুন্দরী দারুণ পারফরম্যান্স করছেন। নাচ অনুশীলন করার সময় আমি তাঁদের মাঝে মধ্যে বকাও দিচ্ছি। এটুকু বলব তাঁরা প্রত্যেকেই যোগ্য। আমি তাঁদের কোরিওগ্রাফি করে সন্তুষ্ট।’

প্রতিযোগিতার সেরা ১০ জন সুন্দরী হলেন, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের মঞ্জিরা বশির মিষ্টি, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্রী তাহসিন ওয়াজেদ এশা, ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটির বিজনেস এডমিনিস্ট্রেশনের শিক্ষার্থী নূর নাহার লিমা, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ফারজানা আক্তার কনিকা,স্ট্যাম্পফোর্ড ইউনিভার্সিটির ফারহানা ইয়াসমীন আনিকা, ঢাকা সিটি কলেজের বিবিএর শিক্ষার্থী আয়শা নুদরাত, শান্তা মারিয়াম ইউনিভার্সিটির অনিন্দিতা মিমি, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যতত্ত্ব বিভাগের তাহমিনা আকতার, ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির সাদিয়া সামাদ শর্মি এবং বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অব ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজির শিক্ষার্থী ফাতিমা ইয়াসমিন লিয়া।

এই ১০ জন থেকে ঘোষিত হবে চূড়ান্ত বিজয়ীর নাম। আর তিনিই বাংলাদেশের পক্ষে  এবারের ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি  প্রতিযোগিতায়   প্রতিনিধিত্ব করবেন ।

বাংলাদেশে এবারের প্রতিযোগিতার আয়োজক প্রতিষ্ঠান অপূর্ব ডটকম। প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার আলোকচিত্র শিল্পী অপূর্ব আবদুল লতিফ। ইভেন্ট পার্টনার টেলিপ্রেস।

এবার যিনি ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি  হবেন তিনি সারা বিশ্বের জাতীসংঘের প্রতিনিধি হয়ে ছড়াবেন শান্তির বার্তা। গত ২৮ বছর ধরে জাতীসংঘের পৃষ্ঠপোষকতায় এই সুন্দরী প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এবার  প্রতিযোগিতার ২৯তম আসর অনুষ্ঠিত হবে।

জাতিসংঘ সারাবিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করে। তাই তাদের পিস কিপিং প্রজেক্টে সারা বিশ্বের বিশ্ববিদ্যালয়ে পডুয়া মেয়েদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার জন্যে এই সুন্দরী প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। ব্যতিক্রমী এই আয়োজনের মাধ্যমে খুঁজে বের করা হবে এমন একজনকে যিনি শুধু সৌন্দর্যেই বিচারেই নয়, সেই সাথে পড়াশোনা, সংষ্কৃতি এবং সামাজিক ক্ষেত্রেও স্বাক্ষর রাখবেন নিজের মেধার।

টেলিপ্রেস মিডিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব রাজু আলীম বলেন, ‘প্রতিযোগিতা পুরোপুরি নিরপেক্ষ হয়েছে। আশা করছি, ফাইনাল রাউন্ডে আমরা  যে যোগ্য তাঁকেই পাব।’

অপূর্ব ডট কমের পক্ষ থেকে আবদুল লতিফ বলেন, ‘জাতিসংঘের প্রজেক্ট হওয়ায় এই প্রতিযোগিতার গুরুত্ব অনেক বেশি। নিরপেক্ষ বিচার বিশ্লেষণের মাধ্যমে আমরা প্রতিযোগিতার শেষ ধাপে এসে  আমরা পৌঁছেছি।’

এবারের ওয়ার্ল্ড মিস ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের গ্রুমিং ও বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন এয়ার লাইন্স পার্সোনালিটি হানিফ জাকারিয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং মিডিয়া ব্যক্তিত্ব রাশেদা রওনক খান, নিউজ প্রেজেন্টার ফারজানা করিম, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির মুখপাত্র ডেপুটি ডিরেক্টর বেলাল আহমেদ, মিডিয়া পার্সোনালিটি রাজু আলীম, নৃত্য কোরিওগ্রাফার পূজা সেনগুপ্ত, ফ্ল্যাগ গার্ল প্রিয়তা ইফতেখার, মডেল এবং প্রেজেন্টার ইমতু, মডেল অন্তু করীম, সুপার মডেল এবং অভিনেত্রী হিমি, কোরিওগ্রাফার কারু কৃশান ও আমান প্রমুখ।