কোন ফোনটি কিনবেন?

পরামর্শ প্রডাক্ট রিভিউ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি লাইফস্টাইল

বাজেটের মধ্যে স্মার্টফোন কিনতে গিয়ে অনেকেই দ্বিধায় পড়েন। নিজের পছন্দমতো হ্যান্ডসেট কেনার জন্য বিভিন্ন মাধ্যমে ঘোরাঘুরি করেও সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। অনেকে জুতসই হ্যান্ডসেট কিনতে না পেরে পরে আফসোসও করেন। যারা একটু বেশি বাজেটের প্রিমিয়াম ক্যাটাগরির হ্যান্ডসেট কেনার কথা ভাবছেন তাদের জন্যই আজকের এ আয়োজন।

হুয়াওয়ের নোভা ফাইভটি, স্যামসাংয়ের এস ১০ই, অপো রেনো এবং শাওমি কে ২০ প্রো এই চারটি প্রিমিয়াম কোয়ালিটির সেটের নানা ফিচার পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।

ক্যামেরা 
স্মার্টফোনে ক্যামেরা ফিচারটি এখন গ্রাহকদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোও ফোনগুলোতে প্রফেশনাল ক্যামেরা ফিচার রাখছে। সবমিলিয়ে ক্যামেরা হয়ে দাঁড়িয়েছে স্মার্টফোন পছন্দ করার অন্যতম নিয়ামক। হুয়াওয়ে নোভা ফাইভটি এ ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে পাঁচটি এআই ক্যামেরা। ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরাসহ ফোনটির পিছনে রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেল, ১৬ মেগাপিক্সেল, ২ মেগাপিক্সেল ও ২ মেগাপিক্সেলের চারটি ক্যামেরা। পেছনের ক্যামেরায় ব্যবহার করা হয়েছে ওয়াইড লেন্স, আল্ট্রা ওয়াইড লেন্স, ম্যাক্রো ও বোকেহ লেন্স।

১০০% দেশীয় খাঁটি চামড়ার পণ্য কিনতে ক্লিক করুন নিচের ছবিতে।

১০০% দেশীয় খাঁটি চামড়ার পণ্য কিনতে ক্লিক করুন উপরের ছবিতে।

স্যামসাং এস ১০ ই ফোনটিতে ১০ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরাসহ ব্যবহার করা হয়েছে ১২ মেগাপিক্সেল ও ১৬ মেগাপিক্সেলের দু’টি রিয়ার ক্যামেরা। রিয়ার ক্যামেরায় রয়েছে ওয়াইড ও আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেলের দু’টি লেন্স।

অপো রেনোতে ব্যবহার করা হয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। এছাড়াও রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেল ও ৫ মেগাপিক্সেলের দু’টি রিয়ার ক্যামেরা। এ ক্যামেরাগুলোতে রয়েছে ওয়াইড ও বোকেহ লেন্স।

শাওমির কে ২০ প্রো এই স্মার্টফোনটিতে ২০ মেগাপিক্সেলের একটি পপআপ সেলফি ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। রিয়ার ক্যামেরায় দেওয়া হয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেল, ৮ মেগাপিক্সেল ও ১৩ মেগাপিক্সেলের তিনটি ক্যামেরা।

র‌্যাম, রম ও প্রসেসর 
স্যামসাং এস ১০ ই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৮ ন্যানোমিটারের এক্সিনোস ৯৮২০ চিপসেট। ৬ জিবি র‌্যামসহ রয়েছে ১২৮ জিবি রম। এছাড়াও এতে রয়েছে মালি জি-৭৬ এমপি ১২ জিপিইউ প্রযুক্তি।

হুয়াওয়ে নোভা ফাইভটি ফোনটিতে ৭ ন্যানোমিটারের কিরিন ৯৮০ চিপসেটসহ ব্যবহার করা হয়েছে ৮ জিবি র‌্যাম। এছাড়াও ব্যবহার করা হয়েছে ১২৮ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ সুবিধা। পারফরমেন্স বাড়াতে এটিতে ব্যবহার করা হয়েছে মালি জি-৭৬ এমপি ১০ জিপিইউ প্রযুক্তি।

অপো রেনোতে ব্যবহার করা হয়েছে ১০ ন্যানোমিটারের ¯œ্যাপড্রাগন ৭১০ চিপসেট। ৮ জিবি র‌্যামসহ রয়েছে ১২৮ জিবি রম ও অ্যাডরেনো ৬১৬ জিপিইউ প্রযুক্তি।

শাওমি কে২০ প্রোতে রয়েছে ৭ ন্যানোমিটারের ¯œ্যাপড্রাগন ৮৫৫ চিপসেট। ৮ জিবি র‌্যামসহ ব্যবহার করা হয়েছে ২৫৬ জিবি রম।

ডিসপ্লে ও ব্যাটারি 
হুয়াওয়ে নোভা ফাইভটিতে ৬.২৬ ইঞ্চির আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে। ২২.৫ ওয়াট হুয়াওয়ে সুপার চার্জিং সুবিধাসহ এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩৭৫০ এমএএইচ ব্যাটারি।

৫.৮ ইঞ্চির সুপার অ্যামলয়েড ডিসপ্লের স্যামসাং এস ১০ই ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ১৫ ওয়াট সুপারচার্জ সুবিধাসহ ৩১০০ এমএএইচের ব্যাটারি।

অপো রেনো ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৬.৪ ইঞ্চির অ্যামলয়েড ডিসপ্লে। ২০ ওয়াটের সুপার চার্জ সুবিধাসহ এতে ব্যবহার করা হয়েছে ৩৭৬৫ এমএএইচের ব্যাটারি।

শাওমি কে ২০ প্রো ফোনটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৬.৩৯ ইঞ্চির সুপার-অ্যামলয়েড ডিসপ্লে। এছাড়াও এতে রয়েছে ২৭ ওয়াটের সুপারচার্জ সুবিধাসহ ৪০০০ এমএএইচের ব্যাটারি।

দাম
বাংলাদেশের বাজারে হুয়াওয়ে নোভা ফাইভটি ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে ৪৯,৯৯৯ টাকায়। স্যামসাংয়ের এস ১০ ই ফোনটি মিলছে ৭৪,৯০০ টাকায়। এছাড়াও অপো রেনো ও শাওমি কে২০ প্রো এ স্মার্টফোন দু’টিও পাওয়া যাচ্ছে ৪৯,৯৯০ ও ৪৯,৯৯৯ টাকায়।
তবে ক্যামেরা, প্রসেসর, র‌্যাম, রম ও ব্র্যান্ডভ্যালু বিবেচনায় অন্য ব্র্যান্ডের মডেলগুলোর তুলনায় এগিয়ে থাকছে হুয়াওয়ের নোভা ফাইভটি। ফোনটির দামও রয়েছে সাধ্যের মধ্যে।