গোয়ালঘরে পড়ে থাকা বৃদ্ধা পেলেন নতুন ঘর

অসহায় মানুষদের পাশে

কিশোরগঞ্জে সন্তানদের অবহেলায় গোয়ালঘরে মানবেতর জীবন কাটাতে হচ্ছিলো বৃদ্ধা সমলা খাতুনকে। অবশেষে দুই পুলিশ কর্মকর্তার সহায়তায় নতুন ঘর পেলেন তিনি। কদর বেড়েছে ছেলে-মেয়েদের কাছেও। বৃদ্ধা বয়সে আদর আপ্যায়ন পেয়ে খুশি সমলা খাতুন। আর নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমা চেয়েছে সন্তানরা। এমন মানবিক উদ্যোগ অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত বলে মনে করেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। 

সন্তানদের কাছে অনেকটা বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন ৮০ বছরের বৃদ্ধা সমলা খাতুন। দীর্ঘদিন ধরে গোয়াল ঘরে মানবেতর জীবন কাটাতে হয় তাকে।

তবে দুই পুলিশ কর্মকর্তার সহায়তায় পেয়েছেন ছোট্ট নতুন টিনের ঘর। নতুন আসবাবপত্র। ঘরে মাথার ওপর ফ্যান আর জ্বলছে বৈদ্যুতিক বাতি। কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার দক্ষিণ সাহেদল গ্রামের সমলা খাতুনের শেষ আশ্রয়স্থল এখন নতুন এ ঘরটি। হোসেনপুর সার্কেলের এএসপি সোনাহর আলী ও থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান অসহায় এ মায়ের জন্য নির্মাণ করে দেন নতুন ঘর।

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ হোসেনপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী বলেন, ছেলেরা সবাই এখন ওনার ভরণ-পোষণের দায়িত্ব নিয়েছেন। আশা করি আর সমস্যা হবে না।

নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমা চাওয়ার পাশাপাশি সন্তানরা দায়িত্ব নিয়েছেন মায়ের ভরণ-পোষণের।

সমলা বেগমের ছেলেরা বলেন, মায়ের দেখাশোনা আমরা সবাই মিলে করবো, যতদিন বাচঁবে ততদিন করবো।

এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য মাসুদ আলম বলেন, এটা একটা দৃষ্টান্তমূলক কাজ। আর কোনো মা যেনো এমন অবহেলায় না থাকে আমি সেদিকে নজর রাখবো।