চাকরি ছেড়ে কৃষিতে মার্কিন তরুণেরা

আন্তর্জাতিক

৩২ বছরের লিজ হোয়াইটহার্স্ট যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো থেকে স্নাতক সম্পন্ন করে ওয়াশিংটনে কয়েক বছর চাকরি করেন। এরপর চলে আসেন মেরিল্যান্ড রাজ্যের আপার মার্লবোরো শহরে। সেখানে তিন একর জমিতে কৃষিকাজ শুরু করেন।

লিজের মতো যুক্তরাষ্ট্রের অনেক উচ্চশিক্ষিত, শহরে বসবাস করা তরুণেরা ডেস্কনির্ভর নিয়মিত চাকরি ছেড়ে কৃষিকাজে মনোনিবেশ করছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সতেজ খাবারের চাহিদা বাড়ছে যুক্তরাষ্ট্রে। আর এই সুযোগে অনেকে কৃষিতে মনোযোগী হচ্ছেন। তরুণদের মানসিকতার এই পরিবর্তন পুরো খাদ্য ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি বিভাগের সর্বশেষ কৃষি জরিপে দেখা যাচ্ছে, গত এক শতকের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো যুক্তরাষ্ট্রে ৩৫ বছরে কম বয়সী কৃষকের সংখ্যা বাড়ছে। জরিপ করা তরুণ কৃষকদের মধ্যে ৬৯ শতাংশই কলেজপড়ুয়া, উচ্চশিক্ষিত।

এর প্রভাবও ইতিমধ্যে পড়তে শুরু করেছে। বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় পর্যায়ে খাদ্য আন্দোলন শুরু হয়েছে। গ্রাম এলাকায় কমে যেতে থাকা কৃষিজমি আবার ফিরে আসছে।

জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড ইনস্টিটিউটের প্রধান ক্যাথলিন ম্যারিগান বলেন, নতুন প্রজন্ম কৃষিতে সম্পৃক্ত হচ্ছে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্রে ভবিষ্যতে কৃষি ব্যবস্থাপনায় ব্যাপক পরিবর্তন আসবে।

২০১৪ সালের এক জরিপে দেখা যায়, যুক্তরাষ্ট্রে ২০০৭ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে ২৫ থেকে ৩৪ বছর বয়সী কৃষকের সংখ্যা ২ দশমিক ২ শতাংশ বেড়েছে। যেখানে অন্য বয়সী কৃষকের সংখ্যা কমেছে। আর ক্যালিফোর্নিয়া, নেব্রাস্কা, সাউথ ডাকোটাতে নতুন করে কৃষিকাজে সম্পৃক্ত হওয়া ব্যক্তির হার ২০ শতাংশ বা তার চেয়ে বেশি।