জাকিরকে বাংলাদেশ জাতীয় দলে দেখতে চান স্যামি

ক্রিকেট খেলাধুলা

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) গত আসরটা ভালো যায়নি তরুণ জাকির হাসানের। চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি। তবে এবারের আসরে দল বদলে রাজশাহী কিংসের ডেরায় এ নবীন। আর ড্যারেন স্যামির নেতৃত্বে দুর্দান্ত ঢঙেই টানা দুই ম্যাচে পারফর্ম করলেন তিনি। নিজের প্রথম ম্যাচেই সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে করেছিলেন হাফসেঞ্চুরি (৫১*)। শনিবার ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচেও দারুণ খেলেছেন। ২৩ বলে করেছেন ৩৬ রান। তার এই ব্যাটিং দেখে মুগ্ধ ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুটি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক স্যামি। শিগগিরই জাকিরকে জাতীয় দলে দেখতে চান এই ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি।

টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে এখনও তেমন পাওয়ার হিটার খুঁজে পায়নি বাংলাদেশ। তাই এই সংস্করণে এখনও অনেকটা সাদামাটা দল টাইগাররা। ঠিক এই জায়গাটায় জাকিরের মাঝে অপার সম্ভাবনা দেখছেন স্যামি। অনুশীলনেই তার ব্যাটিং দেখে মুগ্ধ হয়েছিলেন রাজশাহী অধিনায়ক, ‘জাকিরকে অনুশীলনে যেমন দেখেছি, তাতে তার পারফরম্যান্সে আমি অবাক নই। সে আমাদের জন্য চমক জাগানিয়া এক পারফর্মার। সে ভয়-ডরহীন ক্রিকেট খেলছে। আমি ব্যাটসম্যানদের এমন ক্রিকেট খেলার কথাই বলেছি। আমি তাকে ভবিষ্যতে মূল বাংলাদেশ দলে দেখতে চাই।’ মিরপুরে শনিবারের ম্যাচের পর স্যামি জানিয়ে গেলেন এই কথা।

বাংলাদেশের বয়সভিত্তিক ক্রিকেটের আবিস্কার জাকির। ঘরের মাঠে গত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে সেমি-ফাইনালে তুলতে রেখেছিলেন দারুণ ভূমিকা। এরপর হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) এবং ‘এ’ দলের হয়ে খেলেছেন। চলতি বিপিএলে নিজের প্রথম ম্যাচেই সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে হার না মানা ৫১ রানের ইনিংসে ম্যান অব ম্যাচ হয়েছিলেন। পরের ম্যাচেও ব্যাট চালালেন দারুণ, তাও ঢাকার মতো দলের বিপক্ষে।

এদিন বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ঢাকা ডায়ানামাইটসের কাছে ৬৮ রানের বড় ব্যবাধানে হেরে যায় রাজশাহী কিংস। ফলে বেশ চাপে পড়ে যায় দলটি। গত আসরেও প্রথম পাঁচ ম্যাচের চারটিতেই হেরে কোণঠাসা ছিল রাজশাহী। এরপর দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে টুর্নামেন্টের ফাইনালেই খেলেছিল দলটি। এবারও তারা প্রথম ছয় ম্যাচের চারটিতে হেরেছে। তবে হাল ছেড়ে দিচ্ছেন না স্যামিরা। গত আসরের উদাহরণ তাদের জন্য জ্বলজ্বলে। এবারও তেমন কিছু করার প্রত্যাশা করছে দলটি।

শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাবেন বলেই ঘোষণা স্যামির উচ্চারণে, ‘আমি অধিনায়ক, আমি কখনো হাল ছাড়তে পারি না। আমি ছেলেদের মনে করিয়ে দিয়েছি যে, গত বিপিএলের মাঝপথেও আমরা টেবিলের তলানিতে পড়ে ছিলাম। তারপরও আমরা দুই নম্বরে থেকে লিগ শেষ করেছি।’ আর নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে শেষ চার এখনও সম্ভব বলে মনে করেন স্যামি, ‘এবারও সেটা করা সম্ভব। তবে এর জন্য দরকার দলীয় প্রচেষ্টা, যথাযথ মনোভাব; সবচেয়ে বড় কথা হলো উইকেটে গিয়ে আমাদের পারফর্ম করতে হবে।’