দরিদ্রতা ও অভাব দূর করার পরীক্ষিত আমল (ভিডিও ডিজিটাল কুরআন শিক্ষা)

ইসলাম

আমাদের অনেকেই মাগরিবের পরে সুরা ওয়াকিয়াহ পড়েন। কেননা একটি হাদিসে এসেছে, হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেছিলেন যে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি প্রতিদিন রাতে সুরা ওয়াকিয়াহ তেলাওয়াত করবে তাকে কখনো দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না। হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) তার মেয়েদেরকে প্রত্যেক রাতে এ সুরা তেলাওয়াত করার আদেশ করতেন। (বাইহাকি, শুআবুল ঈমান, হাদিস নং-২৪৯৮)

হাদিসের এই বর্ণনাটি ছাড়াও আরো অনেক বর্ণনা রয়েছে। যেমন কিছু কিছু রেওয়াতে আছে। সুরা ওয়াকিয়াহ হলো ধনাঢ্যতার সুরা, সুতরাং তোমরা নিজেরা তা পড়ো এবং তোমাদের সন্তানদেরকেও এ সুরার শিক্ষা দাও। অন্য এক বর্ণনায় আছে, তোমাদের নারীদেরকে এ সুরার শিক্ষা দাও। আম্মাজান হজরত আয়েশাকে (রা.) এ সুরা তেলাওয়াত করার জন্য আদেশ করা হয়েছিল।

তাছাড়া এ সুরা শারীরিক সুস্থতা রক্ষা ও অসুস্থতা দূরীকরণেও উপকারী। ইমাম গাজালী (রহ.) বলেছেন, মাশায়েখদের কাউকে আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম যে, আমাদের আওলিয়ায়ে কিরামের মধ্যে যে অভাবের সময় সুরা ওয়াকিয়াহ তেলাওয়াতের আমল জারি আছে তার উদ্দেশ্য কি এটা নয় যে, এর উছিলায় আল্লাহ তায়ালা যেনো অভাব মোচন করে দেন এবং দুনিয়াবী প্রাচুর্য দান করেন, তাহলে আখেরাতের আমল দিয়ে দুনিয়াবী সম্পদ কামনা করা কি বৈধ হলো? তখন তিনি উত্তরে বলেছিলেন, এ আমলের দ্বারা তাদের উদ্দেশ্য ছিল, আল্লাহ তায়ালা যেনো তাদেরকে যে হালাতে রেখেছেন তার উপরই তুষ্ট থাকার তৌফিক দান করেন। অথবা এমন রিজিক দান করেন যার দ্বারা তারা ইবাদতের শক্তি যোগাবেন অথবা ইলম অর্জনের পাথেয় যোগাবেন। তাই এখানে দুনিয়া তলব করা উদ্দেশ্য হলো না বরং নেকীর কাজের উদ্দেশ্য করা হলো। তাছাড়া অভাবের সময় এ সুরার আমলের কথাটা তো হাদিস দ্বারাই প্রমাণিত।

এছাড়া পবিত্র কুরআনের যে কোনো অংশে পাঠ করাতে একটি পুরস্কার রয়েছে, যা হাদিসে স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে। ইবনে মাসুদ বর্ণনা করেছেন, যে কেউ আল্লাহর কিতাবের একটি অক্ষর পড়বে তার জন্য প্রত্যেক অক্ষরের বিনিময়ে ১০টি করে নেকি লেখা হবে। কেউ যদি আলিফ, লাম, মীম এই তিনটি শব্দ পড়ে তাহলে তাকে প্রত্যেকটি শব্দের জন্য ১০টি করে নেকি দেওয়া হবে। (তিরমিজি)

যারা কুরআন শিক্ষা জানেন না তাঁরা এই ডিজিটাল কুরআন শিক্ষার মাধ্যমে যে কোন বয়সের লোক কুরআন শিক্ষা সহজে অর্জন করতে পারেন। 

Quran Learning Pen || Digital Quran

আপনি কোরআন পড়তে ভুলে গেছেন বা পড়তে পারেন না?? এখন থেকে সকল চিন্তা বাদ !! আপনি খুব অল্প সময়ে কোরআন শিখতে বা পড়তে চাইলে “কুরআন লার্নিং পেন” হবে আপনার জন্য অসাধারণ সেরা একটি মাধ্যম বা একজন শিক্ষক। বিস্তারিত দেখুন এই ভিডিও তে। ✔ হাদিয়া ৩৯৯৯/- টাকা এবং সাথে পাবেন ১ বছরের ফ্রি সার্ভিস ওয়ারেন্টি।✔ অর্ডার করার জন্য 24/7 কল বা SMS করুনঃ☎ 01756 34 34 35 ☎ 01628 700 700 ☎ 01820 99 99 11✔ কুরআন লার্নিং পেন এর উপকারিতাঃ১। এই কলমটি কোরআন শিখতে, পড়তে, অর্থ বুঝতে ও মুখস্ত করতে আপনার জন্য যে কোনো মুহুর্তে শিক্ষকের ভূমিকায় পালন করবে।২। এক কথায় আরবী না জানা ব্যক্তিদের জন্য কোরআন এর উচ্চারণ ও কৌশল বুঝতে কোন রকম সমস্যা হবে না।৩। আপনি লজ্জার কারণে কোনো হুজুর এর কাছে গিয়ে কোরআন শিখতে পারছেন না ? কোনো সমস্যা নাই এই কলম টি আপনার সাথে থাকলে আপনি একা একা শিখতে এবং পড়তে পারবেন।৪। আরবি এবং বাংলা সহ আপনি ৬ টা ভাষায় কোরআন তিলাওয়াত করতে পারবেন এবং শিখতে পারবেন।৫। আপনি চাইলে একই আয়াত বার বার শুনতে পারবেন যেটা আপনার শেখার জন্য খুব ভালো ভাবে কাজে দিবে।৬। অনেক জন ক্বারীর তিলাওয়াত সংযুক্ত আছে আপনি আপনার পছন্দ মতো যে কোনো ক্বারীর তিলাওয়াত শুনতে পারবেন।৭। ভয়েজ কম্পেয়ারিং অপশন এর ব্যাবস্থা থাকায় আপনি আপনার নিজের ভয়েজ রেকর্ড করে নিজেই চেক করে নিতে পারবেন আপনার তিলাওয়াত শুদ্ধ হচ্ছে কি না ??✈ সমগ্র বাংলাদেশ এ কুরিয়ার এর মাধ্যমে ডেলিভারি দেওয়া হয়✔ আমাদের পন্যের কোয়ালিটি যাচাই করতে চাইলে অফিসে চলে আসুন।✔ Office Address: House- 09, Flat- B2, Lane- 05, Block- B, Section- 06, Mirpur, Dhaka.✔ Delivery Charge [Dhaka City 80 Taka] [Outside Dhaka 100 Taka]

Gepostet von Okshopbd.com am Mittwoch, 22. November 2017

 

সূত্র: মুসলিমস্টোরিজ.টপ