দেশে অথবা বিদেশে পাসপোর্ট হারালে কী করবেন?

ভ্রমণে আপনার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসটির নাম পাসপোর্ট। বিদেশের মাটিতে আপনার নগরিকত্বের প্রমাণ এই পাসপোর্টই। কিন্তু এই অতিগুরুত্বপূর্ণ জিনিসটিই যদি হারিয়ে বসেন, তাহলে উপায়?

বিদেশে পাসপোর্ট হারালে যা করবেন

বিদেশে গেলে পাসপোর্টের প্রতি আপনাকে বাড়তি সতর্ক হতেই হবে। বিদেশে বৈধ পাসপোর্ট অনেকে অবৈধভাবে বেচাকেনা করে। টাকার বিনিময়ে একজনের বৈধ পাসপোর্ট অবৈধ ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দেয়।

বিদেশে পাসপোর্ট হারানো গেলে দ্রুত ওই দেশের পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করতে হবে কিংবা পাসপোর্টটি যে থানা এলাকায় হারিয়ে গেছে সেই থানায় পাসপোর্ট হারানোর সাধারণ ডাইরি করতে হবে। অন্যথায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সঠিক প্রমাণাদির অভাবে আপনাকে কারাগারেও যেতে হতে পারে!

এরপরপরই দ্রুত আপনাকে বাংলাদেশের দূতাবাসে যোগাযোগ করতে হবে। পাসপোর্টের ফটোকপি ও রোডপাস বা রাস্তায় চলাচলের প্রত্যয়নপত্র (যদি থাকে) নিয়ে যোগাযোগ করলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে আপনাকে নতুন পাসপোর্ট তৈরিতে সহায়তা করা হবে।

কোনো ট্র্যাভেল এজেন্সি যদি আপনার ভ্রমণে সহায়তা করে থাকে তবে তারাই আপনাকে বাংলাদেশ হাই কমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সহাযয়তা করবে। এরপর আপনাকে সহায়তা করবে বাংলাদেশ হাই কমিশন। বাংলাদেশের পাসপোর্ট অফিস ও ইমিগ্রেশন আপনার সব তথ্য পর্যবেক্ষণ করে বাংলাদেশ হাই কমিশনকে একটি পত্র বা প্রতিবেদন পাঠাবে। এই পত্র বা প্রতিবেদনই আপনাকে ভালোভাবে দেশে ফিরে আসতে সহায়তা করবে।

দেশে পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে যা করবেন

প্রথমেই পাসপোর্টটি যে থানা এলাকায় হারিয়ে গেছে সেই থানায় পাসপোর্ট হারানোর সাধারণ ডায়েরি করতে হবে। পাসপোর্টে যদি কোনো দেশের মেয়াদ আলা ভিসা লাগানো থাকে তবে সেই বিষয়টি সাধারণ ডায়েরিতে উল্লেখ করতে হবে।

কোনো ব্যক্তির পাসপোর্ট হারানো বা চুরি হলে থানায় সাধারণ ডায়েরি বা মামলা রুজুর পর পুলিশ ইমিগ্রেশন ডাটাবেজে পাসপোর্টটি কালো তালিকাভূক্ত করবে যাতে উক্ত পাসপোর্ট ব্যবহার করে অন্য কেউ বিদেশ গমন করতে না পারে।

তাই হারানো বা চুরি হওয়া পাসপোর্ট পাওয়া গেলে একইভাবে ইমিগ্রেশন ডাটাবেজের কালো তালিকা হতে পাসপোর্টটি প্রত্যাহারের নিমিত্তে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বরাবর আবেদন করতে হবে।

পাসপোর্ট পাওয়া না গেলে সাধারণ ডায়েরির কপিসহ পুনরায় আবেদন করলে পাসপোর্ট অফিস আপনাকে নতুন একটি পাসপোর্ট দিবে।

পাসপোর্ট একটি অত্যন্ত মূল্যবান নিস। তাই ভ্রমণকালে এটি যত্নের সাথেই সংরক্ষণ করা উচিৎ। বাড়তি সতর্কতা হিসেবে সঙ্গে রাখা যায় পার্সপোর্টের একাধিক রঙিন ফটোকপি। এরপরও পাসপোর্ট যাতে চুরি না যায় সে ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে আপনাকেই।

Comments

comments

Leave A Reply

Your email address will not be published.