দেশ জয় করে বিদেশেও ‘ঢাকা অ্যাটাক’

বিনোদন

প্রায় পুরো দেশ জয় করে এখন সারা বিশ্বের ৩২টি শহরে প্রদর্শিত হচ্ছে ‘ঢাকা অ্যাটাক’! প্রবাসের প্রায় প্রতিটি প্রেক্ষাগৃহে সাড়া ফেলছে চলচ্চিত্রটি।

ছবির প্রচারণায় ইউরোপ ভ্রমণে গিয়েছিলেন কাহিনীকার সানী সানোয়ার, পরিচালক দীপংকর দীপন এবং অভিনয়শিল্পী আরেফিন শুভ ও মাহিয়া মাহি। ৩ থেকে ১৮ নভেম্বরের সফর সূচিতে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ টিম দুবাই, ফ্রান্সের প্যারিস, ইতালির রোম, আনকোনা, ভেনিস হয়ে সুইজারল্যান্ডের জুরিখে ছবির প্রচারণা শেষ করে ১৮ তারিখ দেশে ফিরেছেন।
গত ১৭ এবং ১৯ নভেম্বর ‘ঢাকা অ্যাটাক’ প্রদর্শিত হয় লন্ডনের বলিয়ান সিনেমা হলে। প্রবাসী দর্শকদের আগ্রহে চলচ্চিত্রটি ফের ২৬ নভেম্বর প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে একই প্রেক্ষাগৃহে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চলচ্চিত্রটির প্রদর্শক প্রতিষ্ঠান বেঙ্গলি ফিল্ম ক্লাব ইউকে।
প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক অভিনেতা স্বাধীন খসরু বলেন, ‘লন্ডনে দুইদিন টানা প্রদর্শনীর পরও দর্শকদের আগ্রহে আবার প্রদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। শুধু লন্ডনেই নয়, ক্যামব্রিজ, অক্সফোর্ড থেকেও দর্শকদের অনুরোধ আসছে তাদের শহরে চলচ্চিত্রটি প্রদর্শনের জন্য। সব শহরে সম্ভব না হলেও আমরা চেষ্টা করছি প্রবাসীদের বাংলা ছবির প্রতি এই ভালোবাসার প্রতি সম্মান রেখে তাদের তৃষ্ণা মেটাতে।’

‘ঢাকা অ্যাটাক’ টিমের সঙ্গে বিদেশি দর্শকদের ফটো সেশন

এদিকে, ১৭ নভেম্বর লন্ডনের বলিয়ান সিনেমা হলে চলচ্চিত্রটি দেখতে গিয়েছিলেন চিত্রনায়িকা রোজিনা। দর্শকদের আড়ালে মুখ লুকিয়ে সিনেমা দেখতে এসে নিজের প্রতিক্রিয়ায় রোজিনা বলেন, ‘‘আমি ‘ঢাকা অ্যাটাক’ দেশে দেখতে পারিনি। তাই এখানে আয়োজকদের সঙ্গে নিজেই যোগাযোগ করে চলে এসেছি ছবিটা দেখতে। দূর প্রবাসে বাংলা ছবি দেখানোর এ উদ্যোগ অব্যাহত থাকুক। এটা বাংলা ছবির জন্য, বাংলাদেশের ছবির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।”
বিদেশ পরিবেশক বেঙ্গলি ফিল্ম ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, আগামী ৩ নভেম্বর লন্ডন ছাড়াও বার্মিংহামের পিকাডেলি সিনেমা ও ডাবলিনের সিনেওয়ার্ল্ড সিনেমা হলে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, ইংল্যান্ডের গণ্ডি পেরিয়ে ছবিটি ফিনল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডেও প্রদর্শনের কথা রয়েছে।
প্রবাসে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ প্রদর্শনের অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে চিত্রনাট্যকার সানী সানোয়ার বলেন, ‘উপস্থাপনযোগ্য একটি ছবি হয়েছে বলে আমাদের মনে হয়েছে দেশ থেকেই। দেশের বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ, যারা নিয়মিত বাংলা সিনেমা দেখতো না, এমনও আছে যারা কখনোই দেখেনি, সেই শ্রেণিটাও যখন সিনেমা দেখতে এসেছে, প্রশংসা করেছে তখন আমাদের মনে হয়েছে ছবিটা আমরা দেশের বাইরে ছড়িয়ে দিতে পারি, যেখানে আমাদের বাংলাদেশিরাও রয়েছেন। সে চিন্তা মাথায় রেখে আমরা স্থানীয় ভাষায় সাবটাইটেল করে ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ছবিটা নিয়ে গেলাম। এটা একটা বিনোদনের বিষয় পাশাপাশি বাংলাদেশিরা যাতে গৌরবও অনুভব করতে পারে এটা বাংলাদেশের ছবি। দুবাইতেও আমরা দেখেছি, স্থানীয়রা বাংলাদেশি বন্ধুদের নিয়ে সিনেমা দেখতে এসেছে আমাদের স্বাগত জানিয়েছে, বাংলাদেশের ছবি আরও দেখতে চেয়েছে।’
তিনি জানান, মালয়েশিয়া, জাপান ও কোরিয়াতেও ঢাকা অ্যাটাক প্রদর্শনের কথা চলছে।

‘ঢাকা অ্যাটাক’ দেখতে বিদেশি প্রেক্ষাগৃহে ভিড়