নিজেকে ‘ভালো মানুষ’ বলতেই পারেন গেইল

ক্রিকেট খেলাধুলা

মানহানির মামলা জিতেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিকেটার ক্রিস গেইল। ম্যাসাজ থেরাপিস্ট লিয়ান রাসেলের সঙ্গে অসভ্য আচরণ করার যে অভিযোগ উঠেছিল, মামলা জিতে সেই অভিযোগ থেকেও রেহাই পেলেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান।

অভিযোগটা তুলেছিল অস্ট্রেলিয়ার ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া। তাদের দাবি অনুযায়ী ঘটনাটি ২০১৫ বিশ্বকাপের সময় ঘটেছিল। সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডের ড্রেসিংরুমে ম্যাসাজ থেরাপিস্ট লিয়ান রাসেলের সামনে নাকি পরনের তোয়ালে খুলে ফেলেছিলেন গেইল।

এ বছর জানুয়ারিতে গেইলের এই কেলেঙ্কারির খবর ধারাবাহিকভাবেই ছেপেছিল ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া গ্রুপের পত্রিকা সিডনি মর্নিং হেরাল্ডপ, দ্য এজ ও ক্যানবেরা টাইমস। এই অভিযোগকে ‘অশ্লীল’, ‘নোংরা’ ও ‘মিথ্যা’ বলে দাবি করে নিউসাউথ ওয়েলসের একটি আদালতে মানহানির মামলা দায়ের করেছিলেন গেইল। কাল সেই মামলার রায়েই অভিযোগ থেকে মুক্তি পেলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই ক্রিকেটার।

আদালতে গেইল সফলভাবে প্রমাণ করেছেন, এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। ক্ষতিপূরণ হিসেবে তিনি কতটা অর্থ দাবি করবেন, তা এখনো জানা যায়নি। সিডনির কিং স্ট্রিট কোর্ট কমপ্লেক্সের বাইরে গেইল সংবাদকর্মীদের বলেছেন, ‘আমি একজন ভালো মানুষ। আমি অপরাধী নই। আমি খুশি যে সত্যটা মানুষ জানতে পেরেছে।’

আদালতের এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে কি না, তা খতিয়ে দেখছে ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া। তারা দাবি করেছে, জুরিকে ভুল পথে চালিত করা হয়েছে। কোম্পানির কৌঁসুলি পিটার বার্টলেট জানিয়েছেন, আপিল করে রায় বদলাতে না পারলে কোম্পানির বিপুল পরিমাণ অর্থ লোকসানের আশঙ্কা রয়েছে।

আদালত রায়ে বলেছেন, সিডনি মর্নিং হেরাল্ড, দ্য এজ ও দ্য ক্যানবেরা টাইমসে প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলো ঘৃণা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। আগামীকাল ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে চূড়ান্ত রায় জানানো হবে।

সূত্র: বিবিসি স্পোর্টস।