পথ দেখিয়ে এখন নিজেই বিপদে পাকিস্তানি এই তারকা

ক্রিকেট খেলাধুলা

পথ দেখিয়ে বিপদে পাকিস্তানি তারকা শাদাব খান! ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চলতি টি-২০ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে খেলোয়াড় আচরণবিধি ভঙ্গ করায় পাকিস্তানের তরুণ লেগ-স্পিনার শাহদাব খানকে জরিমানা করেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। তাকে ম্যাচ ফি’র ২০ শতাংশ ও একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের নির্বাহী সংস্থাটি।

করাচি ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে সোমবার সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওপেনার চাঁদউইক ওয়ালটনকে বোল্ড করার পর তাকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান শাহদাব। যা আইসিসির আচরনবিধির ২.১.৭ ধারা ভঙ্গের মধ্যে পড়ে। অন-ফিল্ড আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারি তাকে এ শাস্তি দেন।

ম্যাচ শেষে নিজের ভুল স্বীকার করে নেন শাহদাব। তাই কোনো শুনানির প্রয়োজন পড়েনি।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম দু’টি টি-২০তে ব্যাট করার সুযোগ না পেলেও, বল হাতে ৩ উইকেট নিয়েছেন শাহদাব।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ জয় নিশ্চিত করলো পাকিস্তান

বাবর আজমের অপরাজিত ৯৭ রানের সুবাদে সিরিজের দ্বিতীয় টি-২০ ম্যাচে সফরকারী ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৮২ রানের ব্যবধাণে হারাল স্বাগতিক পাকিস্তান। এই তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ জয় নিশ্চিত করল স্বাগতিকরা। প্রথম দুই ম্যাচ জিতে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়েও গেল সরফরাজের দল। প্রথম টি-২০ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪৩ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছিলো পাকিস্তান।

করাচিতে ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নামে পাকিস্তান। ওপেনার ফখর জামান ৬ রান করে ফিরলেও দ্বিতীয় উইকেটে ঝড়ো গতিতে দলের স্কোর বাড়াতে থাকেন আরেক ওপেনার বাবর ও হোসেন তালাত।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ বোলারদের বিপক্ষে চার-ছক্কা তুলে নিতে খুব বেশি কষ্ট করতে হয়নি তাদের। সেই সাথে হাফ-সেঞ্চুরির স্বাদ নিতেও বেগ পেতে হয়নি বাবর ও তালাতকে। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৭৪ বল মোকাবেলা করে ১১৯ রান করেন এ জুটি।

তালাত ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪১ বলে ৬৩ রান করে ফিরলেও দলকে রানের পাহাড়ে তোলার দায়িত্ব নেন বাবর। শেষ পর্যন্ত সফল হয়েছেন তিনি। তার অপরাজিত ৯৭ রানের সুবাদে ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ২০৫ রানের বড় সংগ্রহ পায় পাকিস্তান। নিজেদের টি-২০ ইতিহাসে এটিই সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ পাকিস্তানের। প্রথম টি-২০তে ৫ উইকেটে ২০৩ রান করেছিলো তারা। এই স্কোর এখন দ্বিতীয়স্থানে।

টি-২০ ক্যারিয়ারে প্রথম সেঞ্চুরি না পেলেও, চতুর্থ হাফ-সেঞ্চুরি পাওয়া ইনিংসে ৫৮ বল মোকাবেলা করে ১৩টি চার ও ১টি ছক্কা মারেন বাবর। এটিই তার ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান। এছাড়া শেষের দিকে আসিফ আলী ১৪ ও শোয়েব মালিক ৭ বলে অপরাজিত ১৭ রান করেন।

জয়ের জন্য ২০৬ রানের বড় টার্গেটে খেলতে নেমে ইনিংসের শুরু থেকে এবারও নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দলের কোন খেলোয়াড়ই ব্যাট হাতে যোগ্য জবাব দিতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত ৪ বল বাকী থাকতে ১২৩ রানেই গুটিয়ে যেতে হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। প্রথম ম্যাচে ৬০ রানে গুটিয়ে গিয়েছিলো ক্যারিবীয়রা।

এ ম্যাচে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন ওপেনার চাঁদউইক ওয়ালটন। ২৯ বলে ৪০ রান করেন তিনি। এছাড়া উইকেটরক্ষক দিনেশ রামদিন ২১ ও কিমো পল ১৭ রান করেন। পাকিস্তানের মোহাম্মদ আমির ২২ রানে ৩ উইকেট নেন। ম্যাচের সেরা হয়েছেন পাকিস্তানের বাবর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :
পাকিস্তান : ২০৫/৩, ২০ ওভার (বাবর ৯৭*, তালাত ৬৩, ওডিন স্মিথ ১/৪০)।
ওয়েস্ট ইন্ডিজ : ১২৩/১০, ১৯.২ ওভার (ওয়ালটন ৪০, রামদিন ২১, আমির ৩/২২)।
ফল : পাকিস্তান ৮২ রানে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : বাবর আজম (পাকিস্তান)।
সিরিজ : তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে পাকিস্তান।