পিএসজি তে রাজার সিংহাসনে নেইমার!

খেলাধুলা ফুটবল

পিএসজিকে ‘সৌরজগৎ’ ধরলে নেইমারের মর্যাদা সেখানে সূর্যের মতো। ক্লাবটির প্রায় সবকিছু আবর্তিত হয় তাঁকে ঘিরে! ঠিক বার্সেলোনায় যেমন লিওনেল মেসি, রিয়াল মাদ্রিদে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। কিন্তু পিএসজি নেইমারকে ক্লাব প্রায় সব ধরনের স্বাধীনতা দেওয়ায় নাখোশ স্বয়ং তাঁর সতীর্থরাই। ফ্রান্সের সংবাদমাধ্যম ‘লা প্যারিসিয়ান’ জানিয়েছে, ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে পিএসজি অবাধ স্বাধীনতায় দেওয়ায় তাঁর সতীর্থদের চোখ টাটাচ্ছে।
শুধু নেইমারের জন্য আলাদা করে দুজন ফিজিওথেরাপিস্ট নিয়োগ করেছে পিএসজি। দলটির বাকি খেলোয়াড়দের বলা হয়েছে, অনুশীলনের সময় নেইমারকে যেন কড়া ট্যাকল না করা হয়। এ ছাড়া ম্যাচের সময় দেখা যায়, পিএসজির বাকি সবাই যখন একযোগে রক্ষণভাগ সামলাচ্ছেন, নেইমার তখন মাঝমাঠে বলের অপেক্ষায়। আসলে, ম্যাচ চলাকালীন রক্ষণভাগ সামলানোর ব্যাপারে নেইমারের ওপর কোনো বাধ্যবাধকতা আরোপ করেনি পিএসজি।

এখানেই শেষ নয়। গত সোমবার মার্শেইয়ের মাঠে খেলতে যাওয়ার সময় নেইমার যে ব্যাগ ব্যবহার করেছিলেন, সেটা তাঁর স্পনসর করা। কিন্তু নেইমারের সতীর্থরা সঙ্গে নিয়েছিলেন নেভি-ব্লু রঙের ব্যাগ—যেটা ক্লাবের লোগো-সংবলিত প্রচলিত ‘কিট’। সাবেক বার্সেলোনা ফরোয়ার্ডের জন্য আলাদা করে নিয়োগ করা দুই ফিজিওথেরাপিস্ট হলেন—রাফায়েল মার্টিনি ও রিকার্ডো রোসা। ইউরোপিয়ান ফুটবলে নিজের জন্য ‘বিশেষ’ ফিজিওথেরাপিস্ট রাখা কিন্তু নতুন কিছু নয়। জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ যেমন ক্লাব-ফিজিওর সাহায্য নেওয়ার পাশাপাশি ব্যক্তিগত ফিজিও দারিও ফোর্তের দ্বারস্থও হয়েছেন।
কিন্তু নেইমারের ক্ষেত্রে যেটা ঘটছে, সেই দুই ফিজিও শুধু তাঁকে ছাড়া আর কোনো খেলোয়াড়ের দেখভাল করেন না। আর্থিকভাবেও নেইমারের স্বাধীনতা বাকিদের জন্য স্রেফ ঈর্ষণীয়। পিএসজিতে নেইমার তাঁর নিজস্ব ব্রান্ডের লোগো-সংবলিত ব্যাগ ব্যবহার করতে পারেন। নিজের খেয়াল খুশিমতো স্পনসর বেছে নেওয়ার স্বাধীনতাও তিনি পেয়েছেন। কিন্তু বাকিদের ক্ষেত্রে অবশ্যই পিএসজির লোগো-সংবলিত ব্যাগ ব্যবহার করতে হয়। এ ছাড়া স্পনসর বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে নিয়মের বাধ্যবাধকতা তো থাকছেই। ‘লা প্যারিসিয়ান’-এর দাবি, এসব ব্যাপার নিয়ে ভীষণ নাখোশ নেইমারের সতীর্থরা। যদিও সংবাদমাধ্যমটি কোনো খেলোয়াড়ের নাম প্রকাশ করেনি।
পিএসজিতে এই অবাধ স্বাধীনতার প্রতিদানে কিন্তু ভালোই গোল করছেন নেইমার। লিগ ওয়ানে ৮ ম্যাচে করেছেন ৭ গোল, সব মিলিয়ে সংখ্যাটা ১১ ম্যাচে ১০। ট্রান্সফারের বিশ্বরেকর্ড গড়ে কেনা রাজহাঁস যেহেতু সোনার ডিম দিচ্ছে, তাই তাঁকে অবাধ স্বাধীনতা দিতে বাধা কোথায়—পিএসজি হয়তো এমনটাই ভাবছে। এদিকে নেইমারের মনের ভাবনাটা ‘লা প্যারিসিয়ান’কে ব্যাখ্যা করেছেন পিএসজির অনুশীলন গ্রাউন্ড ক্যাম্প দে লোগোসের এক সূত্র, ‘নেইমার গত চার মৌসুম বার্সেলোনায় বেড়ে উঠেছে মেসিকে আদর্শ মেনে। তাই এটা খুব স্বাভাবিক যে প্যারিসে এসে সে কিছুটা অধিকার আদায়ের চেষ্টা করবে।’