বাংলাদেশকে ৬ কোটি ডলার সহায়তার ঘোষণা যুক্তরাষ্ট্রের

অসহায় মানুষদের পাশে আন্তর্জাতিক বাংলাদেশ

কক্সবাজারস্থ ক্যাম্পে থাকা বাস্তুচ্যুত ৯ লাখের বেশি রোহিঙ্গা এবং ক্ষতিগ্রস্ত স্থানীয় জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে মানবিক সহায়তা হিসেবে প্রায় ৬ কোটি ডলার দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০২০ সালের জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যান এর আওতায় ট্রাম্প প্রশাসনের তরফে জেনেভায় এই ঘোষণা দেয়া হয়। ঢাকাস্থ মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার বুধবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের দেয়া অতিরিক্ত এই মানবিক সহায়তার বিস্তারিত তুলে ধরেন। আমেরিকান সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে রাষ্ট্রদূত বলেন, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের এই সঙ্কট মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র ২০১৭ সালের আগস্টের সহিংসতার পর থেকে মানবিক সহায়তায় এখনও শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। নতুন অঙ্গীকারসহ আমরা এ যুক্তরাষ্ট্র প্রায় ৮২ কোটি ডলার সহায়তা দিয়েছে। এর মধ্যে ৬৯ কোটি ৩০ লাখ ডলার দেয়া হয়েছে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বিভিন্ন কর্মসূচিতে। রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবিলায় জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যানের আওতায় যেসব দেশ সহায়তা দিয়েছে এবং দিচ্ছে তাদের প্রত্যেককে স্বাগত জানিয়ে রাষ্ট্রদূত মিলার বলেন, এই সঙ্কট মোকাবিলায় বিশালমাত্রার সহায়তা প্রয়োজন। এটা একা কারও পক্ষে পূরণ করা সম্ভব নয়।

যুক্তরাষ্ট্রও এটি পারবে না।

ফলে অন্যান্য দেশকে বড় সহায়তা নিতে আসতে হবে। ৯ লাখের বেশি শরনার্থীকে উদারভাবে আশ্রয় দেয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মার্কিন দূত বলেন, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা ও স্থানীয় জনগোষ্ঠির মানবিক ও উন্নয়ন সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্র সরকার অঙ্গীকারাবদ্ধ। তিনি বলেন, বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের স্বেচ্ছায়, নিরাপদ, মর্যাদাপূর্ণ এবং টেকসই প্রত্যাবাসনের পরিবেশ সৃষ্টির জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার অব্যাহতভাবে মিয়ানমার সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে এ-ও জানানো হয়, কেবল মানবিক সহায়তা নয়, এই সঙ্কটের একটি টেকসই সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সহায়তা অব্যাহত থাকবে। উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার সংস্থার সদর দফতরে রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবিলায় ২০২০ সালের যৌথ কর্মপরিকল্পনা (জয়েন্ট রেসপন্স প্ল্যান বা জেআরপি) ঘোষণা করে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা এবং সহযোগী এনজিওগুলো। জেআরপিতে এ বছর ৮৭৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (৮৭ কোটি ৭০ লাখ কোটি ডলার) তহবিল গঠনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ৫ কোটি ৯০ লাখ ডলারের বেশি সহায়তার ঘোষণা দিয়েছে। ঢাকার সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়- রোহিঙ্গাদের জন্য বরাদ্দকৃত তহবিল বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে তাদের নিত্যদিনের চাহিদা মেটাতে ব্যয় করা হবে।