বিশাল লক্ষ্য তাড়া করে অসম্ভবকে সম্ভব করে জিতল চেন্নাই!

ক্রিকেট খেলাধুলা

ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড় তুলেছিলেন ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেল। তার দানবীয় ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ওভারে ২শ’ রানের বিশাল লক্ষ্য দাঁড় করায় কেকেআর। কিন্তু ম্যাচের তখন যে একটি অংশ বাকি ছিল। বৃথা গেল রাসেল ঝড়, জয় পেল চেন্নাই।

দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে আইপিএলে ফিরেছে চেন্নাই। তাই জয়ের তাড়না তাদের খুব বেশি। ব্যাটিংয়েও দেখা গেলো তার ছোঁয়া। অথচ এমন ম্যাচের আগেই ম্যাচটিকে ঘিরে ছিল আশঙ্কা। কারণ চেন্নাইয়ে তখনও আন্দোলন চলছিল ম্যাচটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার জন্য। তাই অতিরিক্ত পাঁচ হাজার নিরাপত্তাকর্মী নিয়োগ দেয় স্থানীয় প্রশাসন।

এমন বারুদে ম্যাচে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন চেন্নাই অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। ব্যাট করতে নেমে সুরেশ রায়না সূচনাটা ভালো এনে দিতে পারেননি। ৪ বলে ২টি ছক্কা মেরে আউট হয়ে যান। ২২ রান করেন অপর ওপেনার ক্রিস লিন। রবিন উথাপ্পা ১৬ বলে ২৯ রান করে আউট হন।

নিতিশ রানা করেন ১৪ বলে ১৬ রান। অধিনায়ক দিনেশ কার্তিক ২৫ বলে খেলেন ২৬ রানের ইনিংস। রিঙ্কু সিং শুধুমাত্র ২ রান করে আউট হয়ে যান। কিন্তু অন্য প্রান্তে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়লেও শেষ মুহূর্তে ব্যাট করতে নেমে চেন্নাই বোলারদের ওপর যে ঝড় তুললেন, তাতেই বিশাল স্কোর গড়ে ফেলে কেকেআর।

১০ ওভার শেষে ৫ উইকেটে যেখানে কেকেআরের রান ৮৯, সেখানে ২০ ওভার শেষে মাত্র ৬ উইকেট হারিয়ে রান ২০২। অবিশ্বাস্য! শেষ ১০ ওভারে কেকেআরের রান উঠেছে ১১৩ রান। চেন্নাইয়ের হয়ে ২ উইকেট নেন শেন ওয়াটসন। ১ উইকেট করে নেন হরভজন, রবীন্দ্র জাদেজা এবং শার্দুল ঠাকুর।

২০৩ রানের বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে চেন্নাই সুপার কিংসের দুই ওপেনার শেন ওয়াটসন এবং আম্বাতি রাইডু দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন। ৫.৫ ওভারেই তারা ৭৫ রানের জুটি গড়ে ফেলেন। ১৯ বলে ৪২ রান করে ওয়াটসন বিদায় নিলে জুটি ভেঙে যায়।

আম্বাতি রাইডু বিদায় নেন ২৬ বলে ৩৯ রানের ইনিংস খেলে। ১২ বলে ১৪ রান করে আউট হন সুরেশ রায়না। এরপর মহেন্দ্র সিং ধোনি আর স্যাম বিলিংস মিলে ৫৪ রানের জুটি গড়েন। ২৮ বল খেলে ধোনি আউট হন ২৫ রান করে। তবে ঝড় তোলেন স্যাম বিলিংস। ২৩ বলে তিনি ৫৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে আউট হন। ২টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৫টি ছক্কা মারেন তিনি।

শেষে রবীন্দ্র জাদেজা ৭ বলে ১১ এবং ডোয়াইন ব্র্যাভো ৫ বলে ১১ রান করে ১ বল হাতে রেখেই চেন্নাইকে কাঙ্ক্ষিত জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে দেন। কলকাতার হয়ে টম কুরান ২ উইকেট নেন। সঙ্গে ১টি করে উইকেট নেন পিযুশ চাওলা, সুনিল নারিন এবং কুলদ্বীপ যাদব।