ব্যাট হাতেও ভালো শুরু সিলেটের

ক্রিকেট খেলাধুলা

কাগজে-কলমে এবারের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সবচেয়ে শক্তিশালী দল ঢাকা ডায়নামাইটস। তবে তারকাই যে সবকিছু নয়, প্রথম ম্যাচে সেটাই দেখিয়ে চলেছে টুর্নামেন্টের নতুন দল সিলেট সিক্সার্স। ঢাকাকে মাত্র ১৩৬ রানে বেঁধে ফেলেছে দলটি। দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর ব্যাট হাতেও দুর্দান্ত সূচনা করেছে নাসির হোসেনের দল।

এই প্রতিবেদন খেলা পর্যন্ত ৭ ওভারে ৬০ রান করেছে সিলেট সিক্সার্স। আন্দ্রে ফ্লেচার ৩৫ ও উপুল থারাঙ্গা ২৬ রানে অপরাজিত রয়েছেন।

এর আগে প্রথমে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৩৬ রান করেছে ঢাকা ডায়নামাইটস। সর্বোচ্চ ৩২ রান করেছেন কুমার সাঙ্গাকারা।

ম্যাচের প্রথম ওভারেই উইকেটের দেখা পায় সিলেট সিক্সার্স। নাসির হোসেন ফিরিয়ে দেন মেহেদী মারুফকে। এরপর অবশ্য লড়াইয়ে ফিরেছিল ঢাকা। এভিন লুইস ও কুমার সাঙ্গাকারা দারুণ ব্যাটিং করছিলেন। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ৫৫ রান যোগ করেন তাঁরা।

অষ্টম ওভারে সিলেটকে আবারও উইকেট এনে দেন নাসির। ফিরিয়ে দেন ভয়ঙ্কর এভিন লুইসকে। ২৪ বলে ২৬ রান করেন এই ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান। দশম ওভারে কুমার সাঙ্গাকারাকে ফেরান লিয়াম প্লাঙ্কেট। ২৮ বলে ৩২ রান করেন সাঙ্গা।

১২তম ওভারে চতুর্থ ব্যাটসম্যান রান আউট হয়ে ফিরে যান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। উইকেটে এসেই ছক্কা মেরে ঝড়ের আভাস দিচ্ছিলেন কাইরন পোলার্ড। তবে তাঁকে টিকতে দেননি আবুল হাসান রাজু। মাত্র ৭ বলে ১১ রান করে আউট হন পোলার্ড।

বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও। প্লাঙ্কেটের বলে সাব্বির রহমানকে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান ডায়নামাইটসের অধিনায়ক। ২১ বলে ২৩ রান করেন তিনি। এরপর আদিল রশিদকে ফেরান রাজু। ক্যামেরন দেলপোর্ট কিছুক্ষণ উইকেটে টিকলেও রানের চাকাটা খুব বেশি একটা ঘোরাতে পারেননি তিনি। শেষ পর্যন্ত ১৩৬ রানে শেষ হয় ঢাকার ইনিংস। ২০ রান করেন দেলপোর্ট।

সিলেটের বোলারদের মধ্যে লিয়াম প্লাঙ্কেট ও আবুল হাসান রাজু নেন দুটি করে উইকেট।