ভর্তি জালিয়াতিতে ভবিষ্যৎ প্রযুক্তি

বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

ভর্তি জালিয়াতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে ২৭ অক্টোবর দুই শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। একই দিনে পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনায় আটজনকে আটক করেছে পুলিশ। ১৯ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির ঘটনায় ছাত্রলীগের দুই নেতাসহ আটক করা হয় ১৫ জনকে। তাঁদের সবাই ভর্তি জালিয়াতির জন্য ব্লুটুথ, ইয়ার ফোন, ব্যাংকের এটিএম কার্ডের মতো দেখতে ইলেকট্রনিক ডিভাইস (যার মধ্যে মুঠোফোনের সিম ব্যবহার করা যায়) ব্যবহার করেছিলেন। এ ছাড়া ১৬ অক্টোবর জনতা ব্যাংকের সহকারী নির্বাহী কর্মকর্তা পদে নিয়োগ পরীক্ষায় ভর্তি জালিয়াতিতে ব্যবহার করা হয়েছিল গমের আকারের ইয়ারফোন, হাতের তালুতে এঁটে যায় এমন মিনিস্ক্যানার।
(সূত্র: প্রথম আলো, ১৬ ও ২৮ অক্টোবর ২০১৭)

চুল-অ্যানটেনা
চুল-অ্যানটেনা শরীরের সব ডিভাইসের যোগাযোগব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করবে।

চশমা-ডিসপ্লে
চোখের ইশারায় গুগল করে সঠিক উত্তর খুঁজে বের করা যাবে।

কলার-পাওয়ার ব্যাংক
এই পাওয়ার ব্যাংক ব্লুটুথ সিস্টেমে সব ডিভাইসকে চার্জ সাপ্লাই দেবে।

রিস্টব্যান্ড-অ্যালার্ম
পরীক্ষার হলে আশপাশ দিয়ে ডিউটি টিচার হাঁটাহাঁটি করলেই রিস্টব্যান্ড অ্যালার্ম ভাইব্রেশনের মাধ্যমে সতর্ক করে দেবে।

আঁচিল-ইয়ারফোন
কানের লতিতে কিংবা আশপাশে এই আঁচিল লাগানো থাকবে, কাজ করবে ইয়ারফোন হিসেবে।

বোতাম-ক্যামেরা
প্রশ্নের ছবি তুলে ফেলবে সেই বোতাম-ক্যামেরা, জালিয়াতি গ্রুপের কাছে সেই প্রশ্নের ইমেজ চলে যাবে সঙ্গে সঙ্গে।

বেল্ট-ম্যানেজার
বেল্টে থাকবে সব ডিভাইস নিয়ন্ত্রণ করার বোতাম, এখান থেকেই নির্দেশ দিয়ে অন/অফ করা যাবে সব যন্ত্র।

কলম-ফোন
মুখের সামনে কলম ধরে ফিসফিস করে অপর প্রান্তে প্রশ্ন জানিয়ে দেওয়া যাবে।