ভারতেরই দাবি বিশ্বকাপ থেকে তাদের প্রাপ্তি শূন্য!

ক্রিকেট খেলাধুলা

ভারতে মাত্রই শেষ হল অনুর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ। ২৪ দেশের যুবাদের চোখ ধাঁধানো পারফরম্যান্সে দারুণ উপভোগ্য ছিল আয়োজনটি। এমন আয়োজনে দর্শকসংখ্যার নতুন রেকর্ড গড়েছে ভারত। প্রশংসা করেছে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফাও। তবুও খুশি নয় দেশটি। টুর্নামেন্ট আয়োজনে কোন ত্রুটি না থাকলেও নিজেদের দলের খেলাই হতাশ করেছে দেশটিকে। একটি ম্যাচেও জয় পায়নি তারা। সফল ভাবে একটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট আয়োজনের কৃতিত্ব যে ফিকে হয়ে যাচ্ছে দলটির ব্যর্থতায়!

বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বে কঠিন প্রতিপক্ষেরই মুখোমুখি হয়েছিল ভারত। দলটির সাথে একই গ্রুপে ছিল দুইবারের চ্যাম্পিয়ন ঘানা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কলম্বিয়া। জিততে পারেনি তিনটি খেলার একটিও। গোল করতে পেরেছে মাত্র একটি। গোলদাতা জিকসন সিংহ। আয়োজক দেশের এমন দুরবস্থায় সাবেক ইংলিশ ও আর্সেনাল ক্লাবের ডিফেন্ডার সল ক্যাম্পবেল বলেছেন, ‘অন্যান্য ফুটবল খেলুড়ে দেশগুলোর চেয়ে ভারত পঞ্চাশ থেকে একশো বছর পিছিয়ে আছে।’

দলের এমন বাজে পারফরম্যান্সে আত্মসম্মানে লেগেছে ভারতীয় ফুটবলের সাথে সংশ্লিষ্টদের। বিশ্বকাপ উপলক্ষে নতুন ভাবে সাজানো হয়েছিল দেশটির স্টেডিয়ামগুলো। আন্তর্জাতিক মানের অবকাঠামো আছে এখন তাদের। কিন্তু মাঠের খেলারও যে উন্নতি করতে হবে তাই বলেছেন পশ্চিমবঙ্গের ক্লাব মোহনবাগানের কোচ সঞ্জয় সেন, ‘যুব বিশ্বকাপ আয়োজনের সুবাদে যে অবকাঠামো পাওয়া গিয়েছে, তা পুরোপুরি সদ্ব্যবহার করতে হবে। মনে রাখতে হবে আয়োজক হিসেবে ভারত খেলার সুযোগ পেয়েছে। দু-একজন অত্যুৎসাহী সমর্থক বাদ দিলে প্রত্যেকেই জানত ভারত জিততে পারবে না।’

মাঠের মান উন্নত হলেও খেলার মান যে মোটেও বাড়েনি একথা বলেছেন ভারতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক ভাস্কর বন্দোপাধ্যায়, ‘যে তিমিরে ছিল ভারতীয় ফুটবল, সেই তিমিরেই পড়ে রয়েছে এখনও। একটুও এগোয়নি। বরং পিছিয়েছে।’