মাঠে নামার আগে দুশ্চিন্তায় মাশরাফির রংপুর রাইডার্স

ক্রিকেট খেলাধুলা

এমনকি বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যেও অভিজ্ঞদের প্রাধান্য দিয়েছে দলটি। ক্রিস গেইল, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, থিসারা পেরেরা, রবি বোপারা, লাসিথ মালিঙ্গা।

কিন্তু এতসবের মাঝেও দুশ্চিন্তা ভর করেছে দলটির ওপর। তা হলো ফিল্ডিংয়ে সমস্যা। এবারের আসরকে লক্ষ্য রেখে গত বুধবার থেকে অনুশীলনে নেমেছে রংপুর। টানা দুই দিন অনুশীলন করার পর শুক্রবার বিশ্রামে আছে তারা। যদিও দলের বেশ কিছু খেলোয়াড় মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের জিমে সময় দেন। তবে আগের দুই দিনই তাদের অনুশীলনের প্রধান বিষয় ছিল ফিল্ডিং অনুশীলন। দলের প্রধান কোচ টম মুডিকে অধিকাংশ সময় দেখা গিয়েছে ক্যাচিং অনুশীলন নিয়েই ব্যস্ত থাকতে।

দলের অগ্রগতি নিয়ে কোচ টম মুডি জানালেন, ‘দলের সবাই মোটামুটি ফিট। তবে ফিল্ডিং নিয়ে আমাদের আরো কাজ করতে হবে। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সফলতা পেতে হলে ভালো ফিল্ডিং করাটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ। আগামী কয়েকদিন এই জায়গাটা নিয়ে আমরা কাজ করবো।’ মাঠে নামার আগ পর্যন্ত ফিল্ডিং অনুশীলনকে প্রাধান্য দিচ্ছেন তা কোচের কথায় স্পষ্ট। দুশ্চিন্তা অধিনায়ক মাশরাফিও কম করছেন না। হাসির ছলে বললেন, ‘আমরা না হয় ব্যাটিংয়ে ২০ রান কম করেছি ধরে নিয়ে ফিল্ডিংয়ে নামবো।

ফিল্ডিংয়ের ঘাটতি ব্যাটিং ও বোলিং দিয়ে পোষাতে চায় রংপুর। বেশ কিছু বিধ্বংসী ক্রিকেটার আছেন দলে। টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় বিজ্ঞাপন ক্রিস গেইল আছেন দলটিতে। তিনি জ্বলে উঠলে একাই ধসিয়ে দিতে পারেন যে কোন দলকে। আছেন ব্রেন্ডন ম্যাককালামের মতো আক্রমণাত্মক ব্যাটসম্যান। থিসারা পেরেরাও কম যাননা। দেশি খেলোয়াড়দের মধ্যেও বেশ কিছু খেলোয়াড় আছেন যারা ম্যাচের ব্যবধান গড়ে দিতে পারেন। বিপিএলের প্রথম বাংলাদেশি সেঞ্চুরিয়ান শাহরিয়ার নাফীস, মোহাম্মদ মিঠুন কিংবা শামসুর রহমানরা বিপিএলের পরীক্ষিত সৈনিক।

বোলিং ইউনিটেও দারুণ দল গড়েছে রংপুর। অধিনায়ক মাশরাফির সঙ্গে আছেন শ্রীলঙ্কান বিধ্বংসী পেসার লাসিথ মালিঙ্গা। আছেন রুবেল হোসেন। দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে দারুণ ছন্দেই আছেন এ পেসার। স্পিন বোলিংয়েও দারুণ বৈচিত্র্য আছে দলটিতে। অভিজ্ঞ বাঁহাতি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাকের সঙ্গে আছেন সোহাগ গাজী, ইলিয়াস সানি ও তরুণ নাজমুল ইসলাম অপু। আছেন উইন্ডিজের অন্যতম সেরা স্পিনার স্যামুয়েল বাদ্রিও। তাই এ বোলিং লাইন আপ যে কোন দলকেই ভোগাতে পারে। তবে দুশ্চিন্তা ওই ফিল্ডিংই।