মাশরাফি তে মুগ্ধ তামিম!

ক্রিকেট খেলাধুলা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১৭ বছর কাটিয়ে দিয়েছেন। বয়সভিত্তিক ও ঘরোয়া ক্রিকেট হিসাব করলে এটি দুই দশকেরও বেশি সময়। শত বাঁক পেরিয়ে ক্যারিয়ারের সায়াহ্নে চলে আসা মাশরাফি বিন মুর্তজা এখনো যে দুর্দান্ত, এবার ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ সেটিই দেখা গেল। প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচ লিস্ট ‘এ’ মর্যাদা পাওয়ার পর এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেট (৩৮) পাওয়ার রেকর্ডটি এখন তাঁরই। এই মাশরাফিকে দেখে মুগ্ধ হয়ে যান দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল।

তামিম দুর্দান্ত খেলেন, অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি স্তুতি বাণে ভাসান সতীর্থকে—সাধারণত এটাই তো দেখা যায়। কিন্তু আজ ভিন্ন ছবি। মাশরাফি দুর্দান্ত খেলছেন, প্রশংসার বৃষ্টিতে ভাসাচ্ছেন তামিম, ‘তিনি প্রায় তাঁর ক্যারিয়ারের শেষ দিকে। ক্যারিয়ারের এ পর্যায়ে এসে এমন দুর্দান্ত খেলা সহজ নয়। এটাই প্রমাণ করে, তিনি ঘরোয়া লিগও কতটা গুরুত্ব সহকারে নেন। তিনি যদি পাঁচ বা দশভাগ কম দিয়েও খেলতেন, তাহলেও এই অর্জন তাঁর হতো না। যারা তাঁকে আদর্শ মনে করে বা যারা বাংলাদেশ দলের বোলার হতে চায়, মাশরাফি ভাইয়ের এই পারফরম্যান্স তাদের জন্য অসাধারণ উদাহরণ।’

তামিম যে ‘উদাহরণে’র কথা বললেন, সেটি কাল হাবিবুল বাশারও বলেছিলেন, ‘যারা তরুণ খেলোয়াড়, তাদের জন্য ভালো উদাহরণ রেখে যাচ্ছে সে (মাশরাফি)। ঘরোয়া ক্রিকেটেও কতটা উজ্জীবিত হয়ে খেলা যায়, সেটি সে দেখাচ্ছে। ন্যাড়া উইকেটে কীভাবে ভালো বোলিং করা যায়, সে উদাহরণও তৈরি করেছে মাশরাফি। আশা করি, ওর কাছ থেকে নিতে পারবে তরুণেরা। টেস্ট ম্যাচ জিততে হলে আমাদের ভালো বোলার দরকার। ২০ উইকেট যে নিতে হবে।’

বিসিবির এই নির্বাচক মজার একটি তথ্যও দিলেন। ক্যারিয়ারের বেশির ভাগ সময়ই মাশরাফির কেটেছে চোটের সঙ্গে লড়াই করে। গত তিন বছর ‘চিরশত্রু’ চোট পিছু নিতে পারছে না মাশরাফির! চোটমুক্ত মাশরাফিকে দেখেও মুগ্ধ হাবিবুল, ‘আগে সে যতটা চোটে পড়ত, বয়সের সঙ্গে সঙ্গে সেটা কমে আসছে। আশা করি, এ রকমই থাকবে। ওর কাছ থেকে বোলারদের শিখতে হবে। স্কিলেও মাশরাফি অনেক এগিয়ে। এখন তরুণদেরও এগিয়ে আসতে হবে।’