মাশরাফি-সাকিবদের বৈঠক নিয়ে মুখ খুললেন সুজন

ক্রিকেট খেলাধুলা

বুধবার (২৮ মার্চ) মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট একাডেমিতে জাতীয় দলের চুক্তিভুক্ত ও চুক্তির বাইরে থাকা ৪০ জন ক্রিকেটার জড়ো হয়েছিলেন। একাডেমির জিমনেশিয়ামে করেছেন রুদ্ধদ্বার বৈঠক। কী নিয়ে তারা বৈঠক করেছেন তা কারো কাছে বলেননি।

সভা শেষে বেরিয়ে যাবার সময় মাশরাফি, মোহাম্মদ শরীফ বলে গেছেন, বহুদিন ক্রিকেটারদের কোন বনভোজন হয় না, তাই একটি বার্ষিক বনভোজনের উদ্দেশেই তাদের একত্রিত হওয়া।

তবে তারা বিষয়টি গোপন রাখতে চাইলেও শেষ পর্যন্ত তা গোপন থাকেনি। জানা গেছে মাশরাফি, সাকিবদের দাবি-দাওয়া, ভাল-মন্দ দেখার সংগঠন ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (কোয়াব) সবুজ সংকেতে সংস্থাটিকে আরও গতি দিতে তারা নিজেদের মধ্যে আলোচনায় বসেছিলেন। যেখানে জহুরুল ইসলাম অমিকে আহ্বায়ক করে জাতীয় লিগের আট দলের অধিনায়কদের সদস্য করে একটি কমিটিও গঠন করে ফেলেছেন।

কোয়াব সহ-সভাপতি খালেদ মাহমুদ সুজনের দাবি, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। তাই বৃহস্পতিবার (২৯ মার্চ) মিরপুর জাতীয় ক্রিকেট একাডেমির সামনে সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানার পর প্রাথমিকভাবে বিষয়টিকে সাধুবাদ জানালেও তিনি এবং তার সংঠনের কেউই যে ক্রিকেটারদের এই উদ্যোগকে ভালো চোখে দেখছেন না সেটা তার কথাতেই স্পষ্ট।

‘অবশ্যই এটা ভালো। ওরা দায়িত্ব নিতে চাচ্ছে, বসতে চাচ্ছে। আমি জানি না ওরা কী চাচ্ছে। ঠিক ক্লিয়ার না। এটা ওদের ভুলে গেলে চলবে না অনেক বছর ধরে আমরা কোয়াবটাকে যেভাবে হোক টিকিয়ে রেখেছি। নিজেদের পকেট থেকে টাকা খরচ করেই টিকিয়ে রেখেছি। কেউ তো সাপোর্ট করতো না। ওরা যদি মনে করে আমরা ওদের প্রতিপক্ষ, সাহায্য করছি না, এটা করলে ভুল হবে।’

‘তারপরেও আমি বলবো ওরা বড় হয়েছে, ওরা সিদ্ধান্ত নেবে, ওরা যদি কমিটি গঠন করে বোর্ডের সাথে ফাইট করে কমফোরট্যাবল থাকে, ওদেরটা আদায় করতে পারে সেই চেষ্টা করতে পারে। কিন্তু এটা সবার জন্যই একটা ভুল বার্তা হবে।’