যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে এক হচ্ছে কিউবা-উ. কোরিয়া

আন্তর্জাতিক
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাজনৈতিক উত্তেজনা বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে কিউবা ও উত্তর কোরিয়া বুধবার তাদের সম্পর্ক আরো জোরদারের অঙ্গীকার করেছে। খবর সিনহুয়ার।
সফররত উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো’র সঙ্গে বৈঠককালে কিউবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রুনো রদ্রিগেজ হাভানার অবস্থান পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, কোরীয় উপদ্বীপের পারমাণবিক ইস্যুটি কেবলমাত্র সংলাপ ও আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা যেতে পারে। তিনি বলেন, ‘কিউবা কোরীয় উপদ্বীপের ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার পক্ষে।’ কিউবার এ কূটনীতি ‘একতরফা অবরোধ’ এবং সন্ত্রাসের মদদদাতা দেশের তালিকায় উত্তর কোরিয়াকে অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছে। উল্লেখ্য, মাত্র দু’দিন আগেই মার্কিন প্রশাসন পিয়ংইয়ংকে কালো তালিকাভুক্ত করে।
রদ্রিগেজ আরো বলেন,‘আমরা রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা এবং দেশের জনগণের আত্ম-সংকল্পের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা পুনর্ব্যক্ত এবং কোনো দেশের বিরুদ্ধে সামরিক শক্তি প্রয়োগ প্রত্যাখ্যান করছি।’ তিনি বলেন, এ দু’দেশের আগের প্রজন্মের নেতাদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠিত বন্ধুত্বের ভিত্তিতে হাভানা ও পিয়ংইয়ংয়ের মধ্যকার সম্পর্ক সন্তোষজনকভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। রি আরো বলেন,‘ সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর ব্যবহার বৃদ্ধি করায় কোরীয় উপদ্বীপ অঞ্চলের পরিস্থিতি ক্রমেই খারাপ ও উত্তেজনাপূর্ণ হচ্ছে।’
উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সোমবার কিউবায় পৌঁছান এবং দেশটির প্রেসিডেন্ট রাউল ক্যাস্ট্রোর সঙ্গে তার সাক্ষাতের কথা রয়েছে। তার এই সফর এমন এক সময় অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন এ দু’দেশের যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাজনৈতিক উত্তেজনা চরমে পৌঁছেছে। সিনহুয়া।