যে কারণে ৯ বছরের শিশুর কাছে ক্ষমা চাইলেন স্মিথ!!

ক্রিকেট খেলাধুলা

কেপটাউনে ‘বল টেম্পারিং’কাণ্ডে জড়িত থেকে বড় ধরনের শাস্তি পেয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার তিন ক্রিকেটার ক্যামেরন ব্যানক্রাফট, স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। আইসিসি র‌্যাংকিং অনুযায়ী টেস্ট ক্রিকেটের শীর্ষ ব্যাটসম্যান অস্ট্রেলিয়া সাবেক অধিনায়ক।

গত কয়েক বছরে নিজের পারফরম্যান্সকে অন্য উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন। গত এক সপ্তাহে

সেখান থেকে লজ্জাজনক পতনটাও দেখলেন। দলের বল টেম্পারিং চেষ্টার কাণ্ডে সব দায় নিজের কাঁধে চাপিয়ে নিয়েছেন। হারিয়েছেন অধিনায়কত্ব, এক বছরের জন্য নিষিদ্ধও হয়েছেন। এই ঘটনার পর প্রথম থেকেই ক্ষমা চেয়ে আসছেন সবার কাছে। এবার ৯ বছরের শিশুভক্তের কাছেও ক্ষমা চেয়েছেন তিনি।

দল যখন জোহানেসবার্গে চতুর্থ টেস্টে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে লড়ছে সেখানে তিন ক্রিকেটার ঘরে বসেই সতীর্থদের খেলা দেখছেন। তৃতীয় টেস্ট শেষে দেশে ফিরেছেন তিন ক্রিকেটারই। দেশে ফিরেই অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন স্মিথ, ওয়ার্নার এবং ব্যানক্রফট। সংবাদ সম্মেলনে চোখের পানি ফেলে কাঁদিয়েছেন ক্রিকেট বিশ্বের অনেককেই।ক্ষমা চেয়েছেন দেশবাসী ও তাদের ভক্তদের কাছে।
ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অফিশিয়াল ব্রডকাস্টার চ্যানেল নাইনের উপস্থাপিকা দেবরাহ নাইটের ছোট্ট শিশুর কাছে ক্ষমা চান এই অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক। পরবর্তীতে বিষয়টি নিজের ইন্সটাগ্রামে শেয়ার করেন নাইট।

স্মিথের কান্নাজড়িত সংবাদ সম্মেলন দেখে কষ্ট পেয়েছেন অনেক ভক্তই। অস্ট্রেলিয়ার সংবাদপাঠিকা দেবরাহ নাইট বৃহস্পতিবার টুইট করেছিলেন যে তার ৯ বছরের ছেলে স্মিথের অনেক বড় ভক্ত। ছেলের কান্না থামাতে ২০ মিনিট সময় লেগেছে তার।পরে টুইটারে স্মিথ নাইটকে ম্যাসেজ দেন, দয়া করে তুমি কি আমার হয়ে তোমার সন্তানের কাছে ক্ষমা চাইতে পারবে?

ব্যাপারটা একটু অদ্ভুত কিন্তু আমি অন্যদের মতো তাকেও হতাশ করেছি।উত্তরে নিউজ নাইনের উপস্থাপিকা বলেন, আমায় ম্যাসেজ করার জন্য অনেক ধন্যবাদ স্মিথ। আগের চেয়ে এখন তোমার প্রতি তার শ্রদ্ধা, ভালোবাসা আরও বেড়েছে। আমরা জানি তুমি এই পরিস্থিতি থেকে ভালোভাবেই ফিরবে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউন টেস্টের তৃতীয় দিনে পকেট থেকে স্যান্ডপেপার বের করে বল টেম্পারিং করেন অজি ব্যাটসম্যান ব্যানক্রফট। বিষয়টি টিভি ফুটেজে ফুটে উঠলে সঙ্গে সঙ্গেই ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সেখানেই শুরু করে সমলোচনার ঝড়।

পরবর্তীতে তৃতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে বল টেম্পারিংয়ের বিষয়টি স্বীকার করেন স্মিথ ও ব্যানক্রফট। স্মিথ বলেন লিডারশীপ গ্রুপ মিলেই এই পরিকল্পনাটি করেছে। অধিনায়ক হিসেবে পুরো দায় নিজের উপরই নিয়েছেন স্মিথ।-