‘রোনালদোর চুল-জীবন স্টাইল অনুসরণ করো না!’

খেলাধুলা ফুটবল

সম্প্রতি পঞ্চম বারের মতো ফিফা বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার জিতেছেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। পারফরম্যান্সের দ্রুতি ছড়িয়ে রিয়াল মাদ্রিদের পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড জায়গা করে নিয়েছেন সর্বকালের সেরাদের তালিকায়। সেই রোনালদোকে বিশ্বের লক্ষ-কোটি তরুণ অনুকরণ-অনুসরণ করবে, এটাই স্বাভাবিক। দিমিতার বারবেতভও রোনালদোকে অনুসরণ করতেই অনুপ্রাণিত করলেন তরুণদের। কিন্তু অনুপ্রাণিত করতে গিয়ে গিয়ে তরুণদের প্রতি একটা পাদটীকাও জুড়ে দিয়েছেন সাবেক বুলগেরিয়ান অধিনায়ক। বলেছেন শুধু রোনালদোর ফুটবল ক্যারিয়ারকেই অনুসরণ করতে। রোনালদোর চুল বা জীবন স্টাইলকে নয়।

রোনালদো শুধু বড় ফুটবলারই নন, ফ্যাশনের প্রতিও চরম ঝোক তার। পোষাক পরিবর্তের মতো কদিন পরপরই বদলান চুলের স্টাইল। দামী দামী গাড়ির প্রতিও প্রবল আকর্ষণ রোনালদোর। সব মিলে রিয়ালের পর্তুগিজ তারকার জীবন স্টাইল অন্য দশ জনের চেয়ে আলাদা।

স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বের তরুণ ফুটবলাররা তাকে অনুকরণ করতে পছন্দ করে। কিন্তু রোনালদোর বিশেষ গুণ, বিলাসবহুল জীবন স্টাইলে চললেও নিজের আসল কাজটা করে যান ঠিকঠাক মতোই। বিশ্বসেরা হওয়ার লক্ষ্যে মাঠ, অনুশীলন, জিমে ঘাম ঝরান প্রতিনিয়ত। কিন্তু সবার পক্ষে দুটোই একসঙ্গে চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। সবাই তা পারেও না। বারবেতভ তাই তরুণদের রোনালদোর ফুটবল ক্যারিয়ারকেই অণুসরণ করতে বলেছেন শুধু। জীবন স্টাইলকে নয়।

ক্যারিয়ারে একটা বছর রোনালদো সঙ্গে কাটিয়েছেন বারবেতভ। ২০০৮ সালে দুজনে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলেছেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে। বারবেতভ তাই কাছ থেকেই দেখেছেন ফুটবলার হিসেবে রোনালদো কেমন। কেমন তার সাফল্য ক্ষুধা। কতটা তীব্র বিশ্বসেরা হওয়ার বাসনা। খুব কাছ থেকে দেখার সেই অভিজ্ঞতা থেকেই বারবেতভ তরুণদের অনুপ্রাণিত করছেন রোনালদোর ফুটবল ক্যারিয়ার অনুসরণ করতে।

রোনালদো যেভাবে কঠোর পরিশ্রম করেছেন বা করেন, তরুণদেরও সেভাবেই কঠোর পরিশ্রম করার তাগিদ দিয়েছেন বারবেতভ, ‘হ্যাঁ, তরুণ ফুটবলাররা রোনালদোর মতো সেরা খেলোয়াড়দের অনুকরণ করার চেষ্টা করে। তার চুলের স্টাইল, পোষাক-আষাক, গাড়ি এবং সর্বোপুরি তার চাকচিক্যময় জীবনকে অনুকরণ করার চেষ্টা করে। তবে আমি তাদের বলতে চাই, রোনালদোর চুল বা জীবন স্টাইলকে নয়, তারা যেন রোনালদোর ক্যারিয়ারকে অনুসরণ করে। অনুশীলনের পর অনশীলনে রোনালদো কতটা পরিশ্রম করেছে, তারা যেন সেটাই করার চেষ্টা করে। রোনালদোর একটাই চাওয়া, সেরা হওয়া। তার কাছে ফুটবলই সবার আগে। অন্য সবকিছু পরে।’

তরুণদের রোনালদোর মতো পেশাদারি হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বারবেতভ বলেছেন, ‘সব চেয়ে ভালো হয়, অন্যকে অনুকরণ না করে নিজেদের দিকেই মনোযোগ দেওয়া এবং পেশাদরি হওয়া। আমাদের ড্রেসিংরুমে রোনালদো ছিল অসাধারণ পেশাদারি। তবে সে মাঝেমধ্যে কৌতুকও করত। কিন্তু মাঠে নামলেই সে দারুণ সিরিয়াস। তখন গোল করা ছাড়া অন্য কিছু তার মনে থাকে না। আমিও উচ্ছুক দৃষ্টিতে তার সবকিছু দেখতাম।’

সাবেক সতীর্থের প্রশংসা করতে গিয়ে রোনালদো ভক্তদের একটু হতাশও করেছেন ৩৬ বছর বয়সী বারবেতভ। হালের সেরা ফুটবলারকে কে, এই প্রশ্নের উত্তরে সাবেক সতীর্থ রোনালদোর চেয়ে বারবেতভ এগিয়ে রাখলেণ লিওনেল মেসিকেই।

কেআর