রোহিঙ্গা শিশুদের সঙ্গে বাংলায় কথা বললেন প্রিয়াঙ্কা

বাংলাদেশ

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবিরে গিয়ে শিশুদের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিয়েছেন হলিউড ও বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী এবং ইউসেফের শুভেচ্ছাদূত প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

এ সময় তিনি রোহিঙ্গা শিশুদের সঙ্গে বাংলায় কথা বলেন, তাদের পড়াশোনায় উৎসাহ দেন। শামলাপুর শিবিরে বেশ কয়েকটি শিশুর সঙ্গে কথা বলেন প্রিয়াঙ্কা। তাদের খোঁজখবর নেন। রিফাত হোসেন নামে এক শিশুকে তিনি বাংলায় বলেন, আমাকে তোমাদের এখানটা ঘোরাবে? শিশুটি তাতে রাজি হলে তার হাত ধরে শিবির ঘুরে দেখেন এই অভিনেত্রী।

আবু বক্কর ছিদ্দিক নামে এক শিশু জানায়, তার কাছে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জানতে চেয়েছেন সে পড়াশোনা করে কি না। ঠিকমতো খাবার খায় কি না। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকে কি না। বাবা-মায়ের নাম এবং মিয়ানমারের কোথায় তার বাড়ি ইত্যাদি।

এ ছাড়াও তিনি (প্রিয়াঙ্কা চোপড়া) কথা দিয়েছেন তাদেরকে (রোহিঙ্গা শিশু) ফের দেখতে আসবেন। শিশুদের সঙ্গে কথা বলার পর ক্যাম্পের আইসিডিডিআরবি পরিচালিত হাসপাতাল পরিদর্শন করেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। সেখানে তিনি শিশুদের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নেন।

হাসপাতালের ইনচার্জ রিয়াজুল ইবনে হাসান জানান, প্রিয়াঙ্কা চোপড়া জানতে চেয়েছেন রোহিঙ্গা শিশুরা কী ধরনের রোগে আক্রান্ত এবং ডায়রিয়া কেন হচ্ছে। তিনি শিশুদের সার্বিক স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন।

সোমবার (২১ মে) বিকাল পৌনে ৪টার দিকে শামলাপুর রোহিঙ্গা শিবিরে পৌঁছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। তার আসার খবর আগে থেকে রটে যাওয়ায় সেখানে বেশ ভিড় জমে যায়। ভিড় সামাল দিতে পুলিশকে বেশ বেগ পেতে হয়।

পুলিশ একপর্যায়ে জোর করে লোকজনকে সরাতে গেলে প্রিয়াঙ্কা তাদের বারণ করেন। শিবির পরিদর্শন করার পর সাড়ে ৪টার দিকে ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপের উদ্দেশে রওনা হয়ে যান এই অভিনেত্রী। প্রিন্স হ্যারি ও মেগানের বিয়েতে যোগ দিয়ে লন্ডন থেকে গতকাল সকাল ৮টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেন তিনি।

সেখান থেকে ইউএস-বাংলার একটি ফ্লাইটে করে বেলা সাড়ে ১২টায় কক্সবাজারে পৌঁছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

ইউএস-বাংলার জিএম (মার্কেটিং সাপোর্ট ও পিআর) কামরুল ইসলাম জানান, ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শনের জন্য বাংলাদেশে এসেছেন ‘ফ্যাশন’ খ্যাত এই অভিনেত্রী।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের মুখপাত্র আফরাজুল হক টুটুল জানান, কক্সবাজার বিমানবন্দর থেকে প্রিয়াঙ্কাকে সড়কপথে ইনানীর হোটেল রয়েল টিউলিপে নেওয়া হয়েছে। আগামী তিন দিন তিনি সেখানেই অবস্থান করবেন। হোটেল থেকে বেলা ৩টায় তিনি মেরিন ড্রাইভ দিয়ে টেকনাফের বাহারছড়ার শামলাপুর শিবিরে যান।

গতকাল সকালে নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি ছবি পোস্ট দিয়ে নিজেই বাংলাদেশে আসার খবরটি জানান প্রিয়াঙ্কা। বিমানে বসা একটি ছবির সঙ্গে তিনি লেখেন, বিশ্বের যত্ন প্রয়োজন। আমাদের যত্ন নিতে হবে। মঙ্গলবার (২২ মে) সকালে প্রথমে তিনি উখিয়ার বালুখালী ও জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরে যাবেন। বিকালে প্রিয়াঙ্কা টেকনাফ ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন।

কাল বুধবার (২৩ মে) উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করে তিনি বৃহস্পতিবার সকালে কক্সবাজার ছাড়বেন।