শবে বরাতের ৪টি করণীয় কাজ; মুফতী সাঈদ আহমাদ পালনপুরী

ইসলাম

১. এ রাতে আল্লাহ তাআলা আপনাকে যতটুকু সাধ্য দেবেন, আপনি ঘরে বসে ব্যক্তিগতভাবে ইবাদত করবেন। কিন্তু তা না করে এটাকে হৈ-হুল্লোড়ের রাত বানানো, মসজিদে ও কবরস্থানে সমবেত হওয়া, খাবার-দাবারের স্থূল আয়োজন করা- এগুলো ভুল কাজ। এগুলোর কোনো বাস্তবতা নেই। এ রাতে নফল পড়া উচিত। পুরো রাত নামায পড়া আবশ্যক নয়। আল্লাহ তাআলা আপনাকে যতটুকু সাধ্য দিয়েছেন, আপনি ঘরে বসেই নফল নামায পড়ুন। এ রাতের ইবাদত একাকী পালন করতে হয়, সংঘবদ্ধভাবে নয়।

২. পরদিন রোযা রাখুন। এটি মুসতাহাব রোযা।

৩. এ রাতে আপনি নিজের জন্যে, আপনার মৃত আত্মীয়-স্বজনের জন্যে এবং পুরো উম্মতের জন্যে মাগফিরাতের দুআ করুন। এ দুআর জন্যে কবরস্থানে যাওয়া জরুরি নয়। এ রাতে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম অবশ্যই কবরস্থানে গিয়েছেন; কিন্তু লুকিয়ে গিয়েছেন। হযরত আয়েশা রাদি. ঘটনাচক্রে জানতে পেরেছিলেন। উপরন্তু এ রাতে নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কাউকে কবরস্থানে যেতে বলেননি। কাজেই এ নিয়ে আমাদের দেশে যে তামাশাগুলো হয়, সেগুলো পুরোপুরি ভুল।

৪. যদি কারো সঙ্গে আপনার ঝগড়া-বিবাদ-কলহ থাকে, তাহলে এ রাতে মীমাংসা করে নিন। যদি মীমাংসা না করেন, তাহলে আল্লাহর ক্ষমা পাবেন না।

-মুফতি সাঈদ আহমাদ পালনপুরী।
(ইলমি খুতুবাত : দ্বিতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা-২৪৭)