‘সচিনকে ছুঁতে আরও অনেক সময় লাগবে’

ক্রিকেট খেলাধুলা

সোমবার শেষ হওয়া ভারত-শ্রীলঙ্কা প্রথম টেস্টের পরে স্মৃতি হাতরেও মনে করতে পারছি না, চারটে স্লিপ আর দু’টো গালি নিয়ে একজন ভারতীয় বোলার শেষ কবে বল করেছে!

ইডেনে পঞ্চম দিন খেলা দেখে আমার মনে হচ্ছিল এটা ভারত-শ্রীলঙ্কা টেস্ট না কি, অস্ট্রেলিয়ায় বক্সিং ডে টেস্ট ম্যাচ দেখছি?

দু’দলের দুই উইকেটকিপার— ভারতের ঋদ্ধিমান সাহা এবং শ্রীলঙ্কার নিরোশান ডিকওয়েলা বেশির ভাগ সময় বল ধরছিল কাঁধের নীচে। এতেই বোঝা যাচ্ছিল, পিচে কতটা বাউন্স ছিল। পঞ্চম দিনের শেষ ওভারেও উইকেট বেশ প্রাণবন্ত। বল পড়ে ভাল উচ্চতায় ছুটছিল।

ইডেনে এই ভারত-শ্রীলঙ্কা টেস্ট ম্যাচ পাঁচ দিন ধরে দেখার পরে আমার মনে হচ্ছে, প্রথম দু’দিন যদি বৃষ্টির জন্য এতটা সময় নষ্ট না হতো, ভারতই ম্যাচটা জিতে যেতে পারত।

বিরাট যে ভঙ্গিতে পঞ্চাশতম সেঞ্চুরিটা করল, সেটাও মনে রাখার মতো। স্টান্স নিতে গিয়ে ও দেখে নিয়েছিল অফসাইডে পয়েন্ট ও থার্ডম্যান অ়ঞ্চলে ফিল্ডার বাউন্ডারিতে রয়েছে। লেগ সাইডেও মিডউইকেট অঞ্চলের ফিল্ডার রয়েছে বাউন্ডারিতে। এক্সট্রা কভার ও মিড-অফ অঞ্চলে ফিল্ডার বাউন্ডারিতে নেই। বন্ধুদের সঙ্গে খেলা দেখতে বসে তখনই আগাম বলে দিয়েছিলাম, জায়গা তৈরি করে লাকমল-কে বিরাট এক্সট্রা কভারের উপর দিয়ে মারবে। ম্যাচেও তাই হল।

টেস্টে ১৮টি এবং একদিনের ক্রিকেটে ৩২টি শতরানের সৌজন্যে এ দিন ওর কেরিয়ারের পঞ্চাশতম শতরানটি পেল বিরাট। যা করতে ওর লাগল সব মিলিয়ে ৩৪৮টি ইনিংস। যেটা কি না সচিন তেন্ডুলকরের চেয়েও তম সময়ে। সচিনের ৫০তম শতরান করতে লেগেছিল ৩৭৬টি ইনিংস। এ দিন ভারত জুড়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, শততম শতরানের মালিক তেন্ডুলকরকেও কি আগামী দিনে পিছনে ফেলতে পারে কোহালি? আমি বলব, বিরাট কোহালির ফিটনেস দুর্দান্ত। দুর্দান্ত রানিং বিটুইন দ্য উইকেট্‌স। অনবদ্য ফিল্ডিং। শততম শতরানের লক্ষ্যটা তবু খুব চ্যালেঞ্জিং। আমার মনে হয়, সচিনের ৫১ টেস্ট সেঞ্চুরি ধরা বিরাটের পক্ষে কঠিন হবে। তবে ৪৯টি ওয়ান ডে সেঞ্চুরি ও টপকে যেতেই পারে। আরও একভাবে দেখলে সচিনের টেস্ট সেঞ্চুরি বেশি ওয়ান ডে সেঞ্চুরির চেয়ে। কিন্তু বিরাট যে গতিতে এগোচ্ছে, ওয়ান ডে-তে অনেক বেশি সেঞ্চুরি করেও সচিনের একশো সেঞ্চুরির বিরল মাইলস্টোনে পৌঁছে যেতে পারে। আমার মনে হয়, বিরাটকে আরও দশ বছর অন্তত খেলতে হবে সচিনকে ধরতে হলে। সেটা অনেক কিছু উপর নির্ভর করবে। ওর ফিটনেস, ফর্ম এবং অবশ্যই ক্রিকেটের প্রতি খিদে এবং অধ্যাবসায়। এখনও পর্যন্ত যা দেখেছি, বিরাটের দায়বদ্ধতা, খিদে এবং অধ্যাবসায় নিয়ে প্রশ্নই নেই।