সন্দেহ থেকে আরাফাত সানির বিরুদ্ধে নাসরিনের মামলা

ক্রিকেট খেলাধুলা

মূলত সন্দেহের কারণেই জাতীয় দলের ক্রিকেটার আরাফাত সানির বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা করেছিলেন বলে জানিয়েছেন তার স্ত্রী নাসরিন সুলতানা। মঙ্গলবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ভারপ্রাপ্ত বিচারক আতাউর রহমানের আদালতে নাসরিন সুলতানা তার দেয়া সাক্ষ্যে এসব তথ্য জানান।

জবানবন্দিতে নাসরিন সুলতানা বলেন, আরাফাত সানি আমার স্বামী। আমরা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে একসঙ্গে ঘোরাফেরা করেছি। আমার কিছু ছবি (অশ্লীল) তুলে তা ফেসবুকে প্রচার করা হয়। এ কাজে আমি তাকে সন্দেহ করে মামলাটি করি। এরপর আসামিপক্ষের জেরায় নাসরিন সুলতানা ‘ভুল বোঝাবুঝির কারণে’ মামলা করার কথা স্বীকার করেন।
এছাড়া তিনি স্বীকার করেন আরাফাত সানির ওপর এখন তার আর কোনো রাগ নেই। এ সময় আদালতে আরাফাত সানি উপস্থিত ছিলেন।

আদালত সূত্র জানায়, সাত বছর আগে পরিচয়ের সূত্র ধরে আরাফাত সানি ও নাসরিন সুলতানার ঘনিষ্ঠতা হয়। ২০১৪ সালের ৪ ডিসেম্বর অভিভাবকদের না জানিয়ে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের ৩ বছরেও সানি নাসরিনকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরে তুলে নেননি।

২০১৬ সালের ১২ জুন রাতে নাসরিন সুলতানা নামের একটি ভুয়া ফেসবুক আইডি থেকে আসল ফেসবুক আইডিতে ম্যাসেঞ্জারে সানি-নাসরিনের অন্তরঙ্গ কিছু ছবি পাঠানো হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে চলতি বছরের ৫ জানুয়ারি তথ্যপ্রযুক্তি আইনে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানায় এ মামলাটি করেন নাসরিন।

তদন্ত শেষে ২২ মার্চ আরাফাত সানির বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে চার্জশিট দাখিল করে পুলিশ। পরে তা বিচারের জন্য ট্রাইব্যুনালে আসে। দীর্ঘ ৫০ দিন কারাভোগ শেষে নাসরিনের অনাপত্তিতেই জামিন পান আরাফাত সানি।