সিঙ্গেল কিংবা ডাবলস না খেলে বাউন্ডারি খেলা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সবচেয়ে বড় রোগ

ক্রিকেট খেলাধুলা

তবে ওভার বাউন্ডারি যেন বেশি আসতে হবে। এটাই এখন বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সবচেয়ে বড় রোগ হয়ে দাড়িয়েছে।

দক্ষিন আফ্রিকা যখন ২২৪ রানের বড় সংগ্রহ দাড় করাল তখন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের দেখে বুঝা গেল তাদের রান করার খুব তাড়া আছে। সিঙ্গেল কিংবা ডাবলসে ম্যাচ জিতা যাবেনা। আকাশে উড়িয়ে সিমানা পার করতে হবে।

এই আকাশে উড়িয়ে সিমানা পার করতে গিয়ে আমরা কি দেখলাম? অনেকে আকাশে উড়াতে গিয়ে ৩০ গজই পার করতে পারছে না। অথচ বেশি দূরে যাওয়অর কোন প্রয়োজন নেই। হাশিম আমলা ৮৫ রান করেছে ৫১টি বলের মোকাবেলা করে। তার ইনিংসে ১টি মাত্র ছক্কা। ১১টি চার। তাহলে তার বাউন্ডারি থেকেই এসেছে ৫০ রান। কিন্তু বাকি ৩৫টি রান তো সিঙ্গেলসের উপর নিতে হয়েছে। আকাশে না উড়িয়েওতো ঝড়ো ব্যাটিং করা যায়। কিন্তু এখানেই যেন ঘোর আপত্তি বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের।

প্রথম টি-টুয়েন্টির দিকে তাকান একবার। সেখানে ভিলিয়ার্সের ২৭ বলে ৪৯ রানের ঝড়ের কথা বলবে সবাই। কিন্তু এই ২৭ বলের ৪৯ রানের ঝড়ে কোন ছক্কার মার নেই সেটা কি দেখেছে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা? ৮টি মেরেছে চার। তাহলে বাকি ১৭টি রান সিঙ্গেলস থেকে এসেছে। সিঙ্গেলস নিয়ে রানের চাকা সচল রেখে মারার বল গুলোকে মেরেছে। আর এতেই রান বেড়েছে ঝড়ো গতিতে। কিন্তু যখন বাংলাদেশ ব্যাটি করতে নামল তখনই হয়ে গেল উলট পালট। বল আকাশে উড়াতেই হবে।

ম্যাচে জিততে হলে শুধু ব্যাট চালাতে জানলেই হবে না । ব্যাটটাকে নিয়ন্ত্রন করার ক্ষমতাও জানা থাকতে হয়।