স্বপ্ন দেখা বহু তরুণীর হৃদয় ভেঙে বিয়ে করলেন তাসকিন !

ক্রিকেট খেলাধুলা বাংলাদেশ বিনোদন

নিউজ ডেস্ক DBN24:  দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে ফেরার দিনই আলোচনায় বাংলাদেশ জাতীয় দলের ডানহাতি ফাস্ট বোলার তাসকিন আহমেদ। দীর্ঘদিনের বান্ধবী সৈয়দ রাবেয়া নাঈমার সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন দলের পেস আক্রমণের অন্যতম এই অস্ত্র। মঙ্গলবার মোহাম্মদপুরের লালমাটিয়ায় তাসকিনের স্ত্রী রাবেয়ার পৈতৃক বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বছর খানেক আগেই ঘরোয়াভাবে তাসকিন-রাবেয়ার আংটি বদল অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ২০১৭ সালের অক্টোবরের শেষ দিনে নতুন ইনিংসে পা দিলেন তাসকিন। স্ত্রী নাঈমা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের (এআইইউবি) অর্থনীতিতে স্নাতক বিভাগের শিক্ষার্থী। তাসকিন নিজেও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

মাত্র শেষ হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ থেকে মঙ্গলবার সকালেই দেশে ফিরেছেন তাসকিন ও তার দল। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে দুই টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে আর দুইটি টি-টোয়েন্টি মাচের পূর্ণাঙ্গ সিরিজে একটি টেস্ট ছাড়া বাকি সব ম্যাচেই মূল একাদশে ছিলেন তাসকিন। যদিও বল হাতে নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি টেস্টে সাত উইকেট, ওয়ানডেতে ৪৭ উইকেট ও টি-টোয়েন্টিতে ১০ উইকেট নেওয়া এই ক্রিকেটার। দক্ষিণ আফ্রিকায় শুধুমাত্র সিরিজের শেষ ওয়ানডে ম্যাচে দুটি উইকেট নিতে পেরেছেন তাসকিন। বাকি সব ম্যাচেই ছিলেন উইকেটশূন্য।

তাসকিন সম্পর্কে বিস্তারিত জানুনঃ

খেলোয়াড়ী জীবনঃ
অক্টোবর, ২০১১ সালে ঢাকা মেট্রোপলিশের হয়ে বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে তাসকিনের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। ব্যক্তিগত দ্বিতীয় টুয়েন্টি২০ খেলায় চিটাগং কিংসের হয়ে অংশগ্রহণ করে দূরন্ত রাজশাহীর বিপক্ষে ৩১ রানে ৪ উইকেট লাভ করেন ও ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন। নিয়মিতভাবে ঘন্টায় ১৬০ কিলোমিটার গতিতে বোলিংয়ে পারদর্শী তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটঃ

১ এপ্রিল, ২০১৪ তারিখে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতার সুপার টেন পর্বে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে অভিষেক ঘটে তার। ২০১৪ সালে ভারতের বিপক্ষে তার ওয়ানডে অভিষেক হয়। খেলায় তিনি ৫ উইকেট লাভ করেন। একমাত্র বাংলাদেশী ক্রিকেটার হিসেবে তিনি অভিষেক ওয়ানডেতে ৫ উইকেট নেন।

২০১৫ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের লক্ষ্যে ৪ জানুয়ারি, ২০১৫ তারিখে বিসিবি বাংলাদেশ দলের ১৫-সদস্যের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করে। এতে তিনিও দলের অন্যতম সদস্য মনোনীত হন। ৫ মার্চ, ২০১৫ তারিখে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের ৪র্থ খেলায় তিনি ৪৩ রানের বিনিময়ে ৩ উইকেট দখল করেন। ঐ খেলায় বাংলাদেশ দল বিশাল রান তাড়া করে ৬ উইকেটের কৃতিত্বপূর্ণ জয়লাভ করে।

বোলিং অ্যাকশন বিতর্কঃ

বোলিং অ্যাকশন ‘ত্রুটিযুক্ত’ হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাময়িকভাবে নিষিদ্ধ হন তাসকিন। ১৯ মার্চ ২০১৬ তারিখে আইসিসি কর্তৃপক্ষ আরাফাত সানি ও তাসকিনের বোলিং অবৈধ বলে তাদের ওয়েবসাইটে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে তাদের দু’জনেরই কনুই ১৫ ডিগ্রির বেশি বেঁকে যায় বলে জানায়। বিশ্বকাপ-টি২০ চলাকালীন তার জায়গায় বাংলাদেশ দলে স্থান পান শুভাগত হোম। তাসকিনের বোলিং অবৈধ ঘোষনায় বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে সমালোচনায় রূপান্তরিত হয়। এ নিয়ে সরব প্রতিবাদ করেছেন সাবেক ক্রিকেটাররাও। সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্রীড়ামোদীরা আইসিসির এ সিদ্ধান্ত ষড়যন্ত্র হিসেবেই দেখছেন। তাসকিনের বোলিং পরীক্ষা নিয়েও গণমাধ্যমে নানা সন্দেহ প্রকাশিত হয়েছে।