স্মিথদের সাজা সম্পর্কে কি বললেন ওয়ার্নার

ক্রিকেট খেলাধুলা

স্মিথরা অপরাধ করলেও তাঁদের শাস্তির মাত্রাটা বেশি হয়ে গেছে বলে মনে করছেন ওয়ার্ন। ছবি: টুইটারস্মিথরা অপরাধ করলেও তাঁদের শাস্তির মাত্রাটা বেশি হয়ে গেছে বলে মনে করছেন ওয়ার্ন। ছবি: টুইটারকেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং-কাণ্ডে স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারকে এক বছর এবং ক্যামেরন ব্যানক্রফটকে ৯ মাস নিষিদ্ধ করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। সাবেক তারকা শেন ওয়ার্নের মতে, স্মিথদের অপরাধের তুলনায় শাস্তির মাত্রাটা বেশি হয়ে গেছে। সে জন্য ক্রিকেট বিশ্বে অস্ট্রেলিয়াবিরোধী মনোভাবকেও দায়ী করছেন অস্ট্রেলিয়ার এ কিংবদন্তি স্পিনার।

অস্ট্রেলিয়ার সংবাদমাধ্যম হেরাল্ড সানে ওয়ার্ন তাঁর কলামে লিখেছেন, কেপটাউনে স্মিথদের এই ‘পূর্বপরিকল্পিত প্রতারণা’য় তিনি ‘হতবাক ও বিরক্ত’। ব্যাপারটা কোনোভাবেই মার্জনীয় নয়। ওয়ার্নের চোখে এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা, বড় অঙ্কের জরিমানা আর নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হতে পারত এ অপরাধের যথার্থ শাস্তি।

কিন্তু স্মিথদের এর চেয়েও বড় শাস্তি দিয়েছে সিএ। কেন, সেই কারণটা নিজের মতো করে ব্যাখ্যা করেছেন ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই লেগ স্পিনার, ‘বেশ কিছু দেশ আছে, যারা অস্ট্রেলিয়াকে পছন্দ করে না, দলের খেলোয়াড়দেরও তাদের অপছন্দ এবং ঘৃণা জমতে জমতে এই আবেগের বিস্ফোরণ ঘটেছে।’ ক্রিকেট বিশ্বে অস্ট্রেলিয়াবিরোধী এই মনোভাবই সিএকে এত বড় শাস্তি দেওয়ার পথে টেনে নিয়েছে বলে মনে করছেন ওয়ার্ন। ডোপ টেস্টে পজিটিভ প্রমাণিত হয়ে খেলোয়াড়ি জীবনে ওয়ার্ন নিজেও এক বছর নিষিদ্ধ হয়েছিলেন।

কিন্তু সিএ স্মিথ, ওয়ার্নার, ব্যানক্রফটকে যে শাস্তি দিয়েছে, তা মেনে নিতে পারছেন না ওয়ার্ন। টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার ইতিহাসে সর্বোচ্চ এ উইকেটশিকারি তাঁর কলামে লিখেছেন, ‘আবেগে ঝাঁপ দিয়ে ওরা যা করেছে, তা আসলে বেশি হয়ে গেছে। এই উন্মত্ত আবেগ ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বব্যাপী। অস্ট্রেলিয়া দলের খেলার ধারণ যাদের অপছন্দ, এই ব্যাপারটা তাদের সুযোগ করে দিয়েছে।’

ফাফ ডু প্লেসির বল টেম্পারিংয়ের ঘটনাও কলামে টেনে এনেছেন ওয়ার্ন। দক্ষিণ আফ্রিকার এই অধিনায়কের বিপক্ষে দুবার বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগ উঠেছিল। অতীতে একই অপরাধে আরও বেশ কিছু বড় মাপের ক্রিকেটারও অভিযুক্ত হয়েছিলেন। ডু প্লেসির বিপক্ষে এর আগে মিন্ট ক্যান্ডি ব্যবহার করে বল টেম্পারিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। এ ছাড়া বল চকচকে রাখতে তাতে মুখের সানস্ক্রিনও মাখিয়ে থাকেন অনেকে।

ওয়ার্ন এ ব্যাপারগুলো উল্লেখ করে লিখেছেন, ‘পূর্বপরিকল্পিত প্রতারণার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু বল টেম্পারিংয়ের নিশ্চয়ই বিভিন্ন মাত্রা আছে! বল চকচকে রাখতে পকেটে মিন্ট রাখাটা কি পূর্বপরিকল্পিত প্রতারণা, নাকি এটা শুধুই বল টেম্পারিং? বলে সানস্ক্রিন মাখানোর ব্যাপারটা তাহলে কী? হয় আপনি বল টেম্পার (বিকৃতি) করছেন অথবা নয়। ঠিক এ কারণেই অপরাধের (স্মিথদের) সঙ্গে শাস্তির মাত্রাটা মানানসই নয় বলে আমি মনে করি।’