স্যামির রাজশাহীকে হারিয়ে দুর্দান্ত শুরু মাশরাফির রংপুরের

ক্রিকেট খেলাধুলা প্রধান খবর

ফরহাদ রেজার বলটিকে হয়তো সীমানা ছাড়াই করতে চাইলেন থিসারা পেরেরা। শেষ বলে ছক্কা মেরে দলকে জেতানো যার অভ্যাসই বলা চলে। তবে রাজশাহী কিংস ও রংপুর রাইডার্সের ম্যাচের শেষ বলটি, মানে রাজাশাহীর ১৮.৫ তম ওভারে মারা পেরেরার শটটিতে বল আকাশে উঠলো, সীমানা ছড়া হলো না। ক্যাচ ফেললেন রাজশাহীর ফিল্ডার। ১ রান যোগ হলো রংপুরের স্কোর বোর্ডে। ১.১ ওভার বাকী থাকতেই তাতে জয় নিশ্চিত হলো রংপুরের। ৬ উইকেটের দারুণ জয়ে এবারের বিপিএলের আসর শুরু করলো মাশরাফির দল।

মাশরাফি এতদিন খেলেছেন ২ নম্বর জার্সিতে। এবার বিপিএলে জার্সি নম্বর বদলেছেন। রংপুরের হয়ে খেলছেন ‘০’ নম্বর জার্সিতে। ছবি: প্রথম আলো

জয়ের জন্য মাশরাফি বিন মুর্তজার রংপুর রাইডার্সকে ১৫৫ রানের লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছিল ড্যারেন স্যামির রাজাশাহী কিংস। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৫৪ রান সংগ্রহ করেছিল রাজশাহী। লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে রাজশাহীর বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে শুরুতে চাপে পড়ে রংপুর। শুরুতে ২ উইকেট হারায় তারা। প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই ফিরে যান রংপুর ওপেনার অ্যাডাম লিথ (০)। আরেক ওপেনার জনসন চার্লসও (৯) থাকতে পারেননি খুব বেশি সময়। ২৫ রানের মাথায় ফিরে যান তিনি। এরপর রান তোলার গতিও ধীর হয় দলটির। ১০ ওভার শেষে রংপুরের রান ছিল ২ উইকেটে ৬৪।

তবে মোহাম্মদ মিথুন আর শাহরিয়ার নাফীসের তৃতীয় উইকেট জুটিই ম্যাচে রাখে রংপুরকে। তৃতীয় উইকেট এই দুজন যোগ করেন ৮০ রান। মিথুন ৩৩ বলে ৪৬ রান করে ফিরে যান কেসরিক উইলিয়ামসের বলে। এরপর নাফীস ও রবি বোপারা যোগ করেন মূল্যবান ২৩ রান। নাফীস ৩৪ বলে ৩ চার ও ১ ছক্কায় ৩৫ রান করে ফিরেন। এরপর বোপারা ও পেরেরা মিলে ম্যাচ শেষ করেন। বোপারা ২৩ বলে ৩ চার ও ২ ছক্কায় করেন অপরাজিত ৩৯ রান। ১২ বলে ২ চারে ২০ রানে অপরাজিত ২০ রান পেরেরার। রাজশাহীর পক্ষে মেহেদী হাসান মিরাজ, ফরহাদ রেজা, কেসরিক উইলিয়ামস ও ফ্র্যাঙ্কলিন ১টি করে উইকেট নেন।

এর আগে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে রনি তালুকদারের ৪৭, জেমস ফ্র্যাঙ্কলিন অপরাজিত ২৬, ড্যারেন স্যামির ২৯ ও মেহেদী হাসান মিরাজের ঝড়ো ১৫ রানে লড়াইয়ের পুঁজি পায় রাজশাহী। রংপুরের পক্ষে নাজমুল ইসলাম ও লাসিথ মালিঙ্গা সর্বোচ্চ ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া মাশরাফি ও সোহাগ গাজী নেন ১টি করে উইকেট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

রাজশাহী কিংস : ২০ ওভারে ১৫৪/৮ (লুক রাইট ১১, মুমিনুল হক ৯, রনি তালুকদার ৪৭, মুশফিকুর রহিম ১১, সামিট প্যাটেল ৩, জেমস ফ্র্যাঙ্কলিন ২৬*, ড্যারেন স্যামি ২৯, ফরহাদ রেজা ০, মেহেদী হাসান মিরাজ ১৫; মাশরাফি ১/১৮, গাজী ১/৫, নাজমুল ২/২০, মালিঙ্গা ২/৩৪)।

রংপুর রাইডার্স : ১৮.৫ ওভারে ১৫৫/৪ ( জনসন চার্লস ৯, অ্যাডাম লিথ ০, মোহাম্মদ মিথুন ৪৬, শাহরিয়ার নাফীস ৩৫, রবি বোপারা ৩৯, থিসারা পেরেরা ২০; মিরাজ ১/৩১, ফরহাদ রেজা ১/৩০, কেসরিক উইলিয়ামস ১/৩০, ফ্র্যাঙ্কলিন ১/২৬)।

ফল : রংপুর ৬ উইকেটে জয়ী।